'নাইট কারফিউ'র বিশ্লেষণ করতে হবে কেন্দ্র সরকারের!


সোমবার থেকে বেড়েছে চতুর্থ দফার লকডাউন।তবে লকডাউন বাড়লেও পরিষ্কার না তার নির্দেশিকা।মুকুব হচ্ছে না বৈদ্যুতিক বিলের খরচ। মুকুব হচ্ছে না মোবাইল রিচার্জের টাকা। ইএমআই থেকে ছাড় পেলেও ১০০ বার ফোন করছে বেসরকারি লোন সংস্থাগুলি থেকে? কবে দেবেন টাকা,কবে দেবেন টাকা? তাদের ফোন রিসিভ করে এক কথা বলতে বলতে বিরক্ত হয়ে যাচ্ছে সাধারণ মানুষ। ফলে সত্যিই লকডাউনে চিন্তা ছাড়া রয়েছে সাধারণ মানুষ বড় প্রশ্নের মুখে সমাজ!

পাশাপাশি সংবাদসংস্থার খবর,বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা যেমন সুইগি, জোমাটো ও অন্যান্য সংস্থাগুলি থেকে ছাঁটাই করা হবে কর্মচারীদের।তার জন্য আগাম নোটিশ-মেইল করছে সংস্থাগুলি। আর আজ কেন্দ্র সরকার শ্রমিকদের বেতন দিতে হবে এই ঘোষণা প্রত্যাহার করে নেয়। ফলে কি হবে যুবসমাজের? আসছে দিনগুলিতে কি হতে চলেছে যুবসমাজের ভবিষ্যৎ? এই বাস্তব সত্য নিয়ে আজ কেন্দ্র সরকারের কাছে পরিষ্কার নির্দেশিকা জানতে চাইলেন নেপালের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর বিদ্যুৎ পোদ্দার।তিনি বলেন, যুবসমাজ আজ চিন্তিত চাকরি যাওয়ার ভয়ে। কি হবে তাদের? বাঁচবে কিভাবে ছাঁটাই হলে? পাশাপাশি বৈদ্যুতিক বিল মুকুব হচ্ছে না। সেটা দিতে হচ্ছে, তারিখ মিস হয়ে গেলে মোবাইলের ম্যাসেজ ঢুকছে।এই বিলের টাকা দেবে কিভাবে সাধারণ মানুষ? টাকা কোথায় তাদের?

আবার কেন্দ্র সরকার 'নাইট কারফিউ' জারি করেছেন। যদিও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তা মানতে নারাজ। কারণ এমনি মানুষ কোভিড১৯ নিয়ে আতঙ্কে রয়েছে,তার মধ্যে কারফিউ।এই নামটা শুনলেই আতঙ্ক আরও বেড়ে যায়। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন অকারণে রাতে বেড়ানোর দরকার নেই। কারফিউ থাকবে না বাংলায়, কারণ কারফিউ শব্দটায় ভয় পায় বহু মানুষ। আজ বিদ্যুৎ বাবু কেন্দ্র সরকারের কাছে নাইট কারফিউ কেন রাখা হয়েছে তার বিশ্লেষণ জানতে চান তিনি। তিনি বলেন, নাইট কারফিউ আদতে কি?কেন রাখা হয়েছে?তা স্পষ্ট করে জানানোর আর্জি জানান বিদ্যুৎ পোদ্দার।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.