রেল টিকিটের কালোবাজারি!সতর্ক হোক কেন্দ্র সরকার


করোনা রুখতে বাড়ছে লকডাউন।আজ থেকে চতুর্থ দফার লকডাউন চালু হল।তবে লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পড়েছে বহু মানুষ।প্রয়োজনীয় কিছু জিনিসের ছাড় দেওয়া হচ্ছে ঠিকই কিন্তু জীবিকা নির্বাহ যেসব জিনিস তাতে কিন্তু ছাড় পাওয়া যাচ্ছে না।সে ফুচকায়ালা থেকে চশমার দোকান হোক বা চায়ের দোকান।এরা সবাই এইসব ছোট ব্যবসার উপরই জীবিকা নির্বাহ করে,ফলে এই এইগুলো সবই প্রয়োজনীয় বলে দাবি ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী পরিষদের উপদেষ্টা তথা নেপালের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর বিদ্যুৎ পোদ্দার।সোমবার তিনি বলেন,লকডাউন ফের ১৪ দিনের জন্য বাড়ল,কিন্তু ছাড় দিচ্ছে না  ছোট ছোট ব্যবসায়ীদের।ফলে কার্যত দোকানপাট-ব্যবসা বন্ধ।তবে  এর পাশাপাশি ভুক্তভোগী হচ্ছে সাধারণ মানুষ।তারা তাদের দরকারি জিনিসও কিনতে পারছে না।যেমন বৃদ্ধদের চোখের সমস্যা হলে চশমা টুকুও নিতে পারছেন না ।

অন্যদিকে করোনা আতঙ্কের জেরে চেম্বারে বসছেন না বহু ডাক্তার।যার কারণে খুবই সমস্যার মধ্যে পড়ছে শিশু থেকে বৃদ্ধরা।তাদের শরীর খারাপ হলে সঠিক ডাক্তার পাচ্ছে না।ডাক্তারদের পাওয়া যাচ্ছে একমাত্র হাসপাতালে।কিন্তু ৫০- পার হওয়া ব্যক্তিরা হাসপাতালে যেতে ভয় পাচ্ছে।কারণ তারা জানে ৫০ এর উপর বয়স হলেই করোনা আক্রান্তের আশংকা বেশি।ফলে রোগ চেপেই, ব্যথা সহ্য করেই বাড়িতে বসে থাকতে হচ্ছে।এদিন বিদ্যুৎ বাবু, চিকিৎসকদের অনুরোধ করেন তারা যেন তাদের চেম্বারে বসেন,তা নাহলে বিনা চিকিৎসায় মরতে হবে রোগীদের।

পাশাপাশি আজ তিনি রেলের টিকিটের কালোবাজারি নিয়ে কটাক্ষ করেন একদল অমানবিক ব্যবসায়ীদারদের।রেলের টিকিট বুকিং শুরুর সাথে সাথে বেশিরভাগ টিকিট একদল ব্যবসায়ীরা কিনে নিয়ে বেশি দামে বিক্রি করছে।যার কারণে শ্রমিকরা টিকিট বুক করতে পারছে না,ফলে তারা বাড়ি ফিরতে পারছেন না।তাদের পায়ে হেঁটে ফিরতে হচ্ছে।

যদি শ্রমিকদের কাছে টাকা থাকত তাহলে তারা সেই টাকা দিয়ে যে যেখানে আছে সেখানেই থাকতে পারত।ফলে এই বিষয়ে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া উচিত কেন্দ্র সরকারের।এমনটাই মন্তব্য করেন বিশিষ্ট সমাজসেবী বিদ্যুৎ পোদ্দার।তিনি আরও বলেন,চড়া দামে টিকিট বুকিং করতে হচ্ছে,ফলে এত টাকা শ্রমিকরা পাবে কোথা থেকে? এই বিষয়েও চিন্তা করা দরকার কেন্দ্র সরকারের। এমন মহামারীর সময়ে কেন্দ্র সরকারের উচিত বিনামূল্যে বিভিন্ন রাজ্য আটকে থাকা শ্রমিকদের ট্রেন দিয়ে তাদের বাড়ি পৌঁছে দেওয়া।আজ বিদ্যুৎ বাবু সরকারের কাছে অনুরোধ করেন,কেন্দ্র সরকার যেন একবার এই বিষয়গুলি সক্রিয়ভাবে দেখেন। 
Loading...

No comments

Powered by Blogger.