অকারনে মাস্ক ব্যবহার করতে বারন করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা



অকারনে মাস্ক ব্যবহার করতে বারন করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা


করোনা আতঙ্কে ভীত গোটা বিশ্ব। বেশিরভাগ মানুষ এখন বাড়ি থেকেই অফিস করতে ব্যস্ত ৷ ইতালি, স্পেন হয়ে এখন করোনার এপিসেন্টার চিন থেকে সরে গিয়েছে করোনা। পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বার্তা কিন্তু একই থেকেছে, হাত ধোবেন, মুখে হাত দেবেন না আর দূরত্ব বজায় রাখবেন।

‘‌হু’‌ জানিয়েছে মাস্ক তখনই ব্যবহার করতে হবে যখন কেউ করোনা আক্রান্ত হবেন বা সন্দেহ করবেন যে তিনি আক্রান্ত!‌ অথবা যিনি কোনও করোনা আক্রান্তের সেবা করছেন, তিনিও পরে থাকতে পারেন মাস্ক। কিন্তু অকারণে মাস্ক ব্যবহার করতে বারণ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তাও মানুষ আতঙ্কের চোটেই মাস্ক ব্যবহার করছে। আর তাতেই সিঁদুরে মেঘ দেখছেন বিশেষজ্ঞরা। ফরাসি স্বাস্থ্য মন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘‌আমি একদিন বাড়ির বাইরে দেখি, প্রায় সকলেই মাস্ক পরে ঘুরছেন। আর কেউ কেউ হাত দিয়ে মাস্ক ঠিকও করছেন।’‌




এই ট্যুইটের ভিত্তিতেই সমস্যা বুঝিয়ে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাঁরা বলছেন, এভাবে হাত দিয়ে মাস্ক ঠিক করলে তো মুশকিল। কারণ কোনও কারণে মাস্কের ওপর যদি জীবানু লেগে থাকে, তাহলে তো সেটা হাতে লাগবে, মুখেও লাগবে। এভাবে মাস্ক হাত দিয়ে ঠিক করলে তা রোগ আটকানোর বদলে ছড়িয়ে দেবে আরও বেশি করে। একই কথা প্রযোজ্য গ্লাভসের ক্ষেত্রেও। গ্লাভসের ওপরেও লেগে থাকতে পারে ‌করোনা ভাইরাস। অনেকেই দেখা যাচ্ছে, গ্লাভস পরে ঘুরছেন, অথচ সেই হাত দিয়েই কপালে, গালে হাত দিচ্ছেন। যার ফলে রোগ ছড়াতে পারেই। এছাড়া, মাস্ক সাধারণ করোনা আক্রান্ত নন এমন মানুষের জন্য যতটা প্রয়োজন, তার থেকে অনেক বেশি প্রয়োজন চিকিৎসকদের। অস্ত্রোপচারের সময় মাস্ক আবশ্যক। সাধারণ মানুষ পাগলের মতো মাস্কের পিছনে ছোটার কারণে চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় মাস্কও অমিল হচ্ছে। ফলে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে চিকিৎসকদের। তাই তাঁরা বলছেন, দায়িত্বজ্ঞানহীন মাস্ক ব্যবহার করলে রোগ ছড়াবে, কমবে না।


Loading...

No comments

Powered by Blogger.