পান্ডবেশ্বর বিধানসভায় শুরু হলো ''বাংলার গর্ব মমতা'' কর্মসূচি


পান্ডবেশ্বর বিধানসভায় শুরু হলো ''বাংলার গর্ব মমতা'' কর্মসূচি


পান্ডবেশ্বরঃ গোটা রাজ্যের সঙ্গে শনিবার থেকে পান্ডবেশ্বর বিধানসভায় শুরু হলো " বাংলার গর্ব মমতা " কর্মসূচি। এই উপলক্ষে পান্ডবেশ্বরের হরিপুরে বিধায়ক জিতেন্দ্র তেওয়ারির উপস্থিতিতে তৃনমুল কংগ্রেসের এক কর্মী সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সেই সম্মেলনে সভাপতিত্ব করে জিতেন্দ্র তেওয়ারি বলেন, বর্তমান কেন্দ্রীয় সরকার বিভাজনের নীতি নিয়ে কাজ করছে। ধর্ম ও জাতির ভিত্তিতে মানুষকে ভাগাভাগি করার চেষ্টা হচ্ছে। সংবিধানকে ভাঙ্গার চেষ্টা করা হচ্ছে। তাদের এই মানসিকতার বিরুদ্ধে একমাত্র মমতা বন্দোপাধ্যায় লড়াই করছেন। এই কেন্দ্র সরকার আস্তে আস্তে লোকেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে সংবিধানের মুল ভাবনাকে বদলাতে চাইছে। তিনি আরো বলেন, বিজেপির হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে ভাগাভাগি করার মুল বাধা হলেন মমতা বন্দোপাধ্যায় । তারা ভালো করে জানেন, মমতা বন্দোপাধ্যায় থাকলে হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে ভাগাভাগি করা সম্ভব নয়। এই কারণে জাতির ভিত্তিতে ভাগাভাগি করা হচ্ছে। উঁচু জাতি ও নিচু জাতি বলে মানুষদের ভাগাভাগি করা হচ্ছে। এই এলাকায় সবচেয়ে বড় বাধা হলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। এখানে ৫০ শতাংশ মহিলা প্রতিনিধি আছেন। মমতা বন্দোপাধ্যায়ের জন্য এটা সম্ভব হয়েছে। পঞ্চায়েতে মমতা বন্দোপাধ্যায় ৫০ শতাংশ মহিলাদের সংরক্ষণ দিয়েছেন। সংবিধানের মুল ভাবনাকে নষ্ট করার জন্য কেন্দ্র সরকারের রাস্তার সবচেয়ে বড় বাধা হলো মমতা বন্দোপাধ্যায়। তিনি শুধু বলছেন সংবিধান মেনে চলতে হবে। এরজন্য বিজেপি তাকে আক্রমণ করছে। আমরা বলছি বাংলায় গৌরব হলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। এরজন্য টিভিতে কিছু মানুষ মহাপুরুষদের নাম নিয়ে বলছে উনি আমাদের গর্ব নয়। মহাপুরুষরা তো আমাদের গর্ব। কিন্তু তাদের উত্তরাধিকার হিসাবে বর্তমানে কেউ যদি বাংলায় থাকেন, তিনি হলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। নেতাজি, বিদ্রোহী কবি কাজি নজরুল ইসলাম ও স্বামী বিবেকানন্দের আদর্শকে  নিয়ে বর্তমানে সমাজে লড়াই করছেন একমাত্র মমতা বন্দোপাধ্যায়। সেইজন্য উনি আমাদের বাংলার গর্ব। তিনি বলেন, সংবিধানে দেওয়া অধিকার নিয়ে সবচেয়ে বেশি লড়াই করছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে আলাদা আলাদা সংস্কৃতি আছে। তারমধ্যে বাংলার সংস্কৃতি সর্ব শ্রেষ্ঠ। এতে আমাদের গর্ব হয়। বাংলায় কথা বলা লোকেরা শুধু বাঙালি নন। বাংলার মাটিতে থাকা ও ভালোবাসে যারা, তারা সবাই বাঙালি। বাংলার সংস্কৃতিকে রক্ষা ও গরিমাকে ধরে রাখতে শুধুমাত্র মমতা বন্দোপাধ্যায় লড়াই করছেন। তিনি বলেন, আমরা ভোটে জিতে উপরে বসে আছি। কিন্তু আমাদের সবকিছু হলো কর্মী ও  সমর্থকরা। আজ আমরা যেখানে পৌঁছেছি, তারজন্য অনেক লোক ত্যাগ ও বলিদান করেছেন। তাই পুরনো কর্মীদের সম্মান দিন। তাদের ভুললে চলবে না। মমতা বন্দোপাধ্যায় সংবিধান ও বাংলার সংস্কৃতি বাঁচাতে ও গৌরবকে  এগিয়ে নিয়ে যেতে লড়াই করছেন। তাই তিনি আমাদের গর্ব। তার সৈনিক হিসেবে আমরা কাজ করবো।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.