কন্ডোম ব্যবহার করার আগে এই সত্যিটি অবশ্যই জেনে নিন


আমাদের দেশ যেহেতু যৌনচর্চায় অনেক পিছিয়ে এবং এই বিষয়ে ট্যাবু তে ভোগে সেহেতু ঠিকমতো না জেনেশুনে অনেকেই এবিষয়ে নানা পদক্ষেপ নিয়ে ফেলে তার মধ্যে একটি হলো কন্ডোমের ব্যবহার। কনডম ব্যবহারে গর্ভধারণ আটকানো সম্ভব কিন্তু অনেকেই এবিষয়ে সচেতন নয়। ফলে কনডম ব্যবহার করেও কাজের কাজ কিছু হয়না। তবে আসুন দেখে নিই কনডম ব্যবহারের সময় কী কী সতর্কতা অবলম্বন করবেন।
কনডম পরার সময় কিছু জিনিসের প্রতি নজর রাখা প্রয়োজন। লক্ষ্য করে দেখবেন, কন্ডোমের সামনের দিকটায় কিছুটা বাড়তি অংশ থাকে। আঁটসাঁট করে ক’ন্ডোম পরতে যাবেন না। সেই বাড়তি জায়গাটা ফাঁকাই রাখুন। সেক্স করার সময় যৌ’নাঙ্গ থেকে বেরনো তরল জমা হতে দিন ফাঁকা জায়গাটায়। টাইট করে পরলে কনডম ফুটো হয়ে যেতে পারে। শুক্রাণু প্রবেশ করতে পারে নারীর যৌ’নাঙ্গে। এর থেকেই ঘটে যেতে পারে বিপত্তি।

অধিকাংশ পুরুষই মানিব্যাগের কোনও এক ফাঁকে কনডম রেখে দেন। এবার থেকে মানিব্যাগে কনডম রাখা বন্ধ করুন। সেখানে ক’ন্ডোম রাখলে, তা ঘষা লেগে ফুটো হয়ে যেতে পারে। গরমে তাপমাত্রায় হারাতে পারে ক’ন্ডোমের কার্যকারিতাও।
যদি মনে করেন মাসের পর মাস, বছরের পর বছর আলমারিতে পড়ে থাকা কনডম নিরাপদ, তা হলে ভুল করছেন। ওষুধের মতো ক’ন্ডোমেরও এক্সপায়ারি ডেট থাকে। মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে কিন্তু ক’ন্ডোমটি কাজ করবে না। তাই ব্যবহার করার আগে ক’ন্ডোমের এক্সপায়ার ডেট দেখে নিন।
অনেকেরই ভ্রান্ত ধারণা, ক্রিয়া ক্লাইম্যাক্সে পৌঁছলে তবেই নাকি কনডম পরতে হয়। এতে কিন্তু সমস্যা কম হয় না। যৌ’নক্রিয়ার ক্লাইম্যাক্সে পৌঁছনোর আগেই শুক্রাণুরা প্রবেশ করতে শুরু করে নারীর যৌ’নাঙ্গে। ক্রিয়া চলাকালীনই শুক্রাণুরা একে একে বেরোতে থাকে। ফলে শুরু থেকেই ক’ন্ডোম পরে নেওয়া ভালো।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.