শ্রমিকদের ইট ভাটায় নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেপ্তার ইট ভাটার মালিক



মৃন্ময় নস্কর,দঃ২৪পরগনাঃ  ভিন রাজ্যের শ্রমিকদের ইট ভাটায় জোর করে আটকে রাখার এবং তাদের ওপর নির্যাতন করার অভিযোগে গ্রেপ্তার হল ইট ভাটার মালিক ও ম্যানেজার সহ শ্রমিক ঠিকাদার। তাদের বিরুদ্ধে বারুইপুর থানায় শ্রমিক আইন সহ নির্যাতনের ধারায় মামলা শুরু করেছে পুলিশ। উদ্ধার করা হয়েছে আটক শ্রমিকদের। উদ্ধার হওয়া শ্রমিকদের মধ্যে কোলে শিশু নিয়ে বেশ কয়েকজন মহিলা শ্রমিক ও পুরুষরাও ছিলেন। তাদের ফিরত পাঠান হয়েছে নিজেদের রাজ্যে।বারুইপুরের কলাবরু যমুনা ইট ভাটার ঘটনা। বারুইপুর মহকুমা শাসকের কাছ থেকে ওয়াটসঅ্যাপে অভিযোগ পেয়ে ওই ইট ভাটায় অভিযান চালায় বারুইপুর থানার পুলিশ। আর তাতেই গ্রেপ্তার হন কলাবরুর বাসিন্দা যুমনা ইট ভাটার মালিক সেলিম মোল্লা,ক্যানিংয়ের দেবীসাবাদের বাসিন্দা যুমনা ইট ভাটার ম্যানেজার বাইগিদ হোসেন মণ্ডল এবং ছত্তিশগড়ের বাসিন্দা ওই ইট ভাটার শ্রমিক ঠিকাদার সন্তোষ দাস। ধৃতদের আদালতে পাঠালে বিচারক তাদের জেল হেপাজতে রাখার নির্দেশ দেন। জেলার পুলিশ সুপার রশিদ মুনির খান জানান, উদ্ধার হওয়া শ্রমিকরা সকলেই ছত্তিশগড়ের বাসিন্দা। তাদের মধ্যে থেকে সন্তোষ গন্ধর্ব পুলিশের কাছে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগ, মঙ্গল গন্ধর্ব,সঞ্জয় ট্যান্ডন, অমরিকা ট্যান্ডন,শোভনা ট্যান্ডন ও সোয়ান ট্যান্ডনকে ওই ইটভাটাতে জোর করে আটকে রাখা হয়েছিল। আটকদের মধ্যে শোভনার বয়েস মাত্র ৪ বছর এবং সোয়ানের বয়েস মাত্র ৬ মাস। তারা সকলেই ছত্তিশগড়ের কোরবা জেলার বাসিন্দা। গত ৪ মাস ধরেই তারা বারুইপুরের যমুনা ইট ভাটাতে শ্রমিকের কাজ করছিল। যখনই তারা নিজেদের বাড়িতে যেতে চাইত তখনই তাদের ওপর অত্যাচার করা হত। জোর করে আটকে রাখা হত। ভয় দেখান হত। দেড় মাস আগেও তারা যখন বাড়ি যেতে চায় তখনও এইভাবে তাদের ওপর অত্যাচার চালান হয়েছিল। ভয় দেখান হয়েছিল। এমন কি জোর করে আটকে রাখাও হয়। সন্তোষ গন্ধর্বের এই অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.