কোথা থেকে করোনাভাইরাস নামটি এসেছে




চীনের উহান শহর থেকে ছড়িয়েপড়া করোনাভাইরাস আতঙ্কে ভুগছে সারাবিশ্ব। এখন পর্যন্ত হাজার হাজার লোক আক্রান্ত হয়েছেন। সীমান্ত বন্ধ ঘোষণার পাশাপাশি চীনের কয়েকটি শহর অচল করে রাখা হয়েছে।এই ভাইরাস এখন পর্যন্ত প্রায় ৫০০ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে।২০১৯-এনসিওভি ভাইরাসটি করোনাভাইরাস পরিবারেরই। বছরের শুরু থেকেই করোনা বিয়ার ভাইরাস নিয়ে সার্চ জায়ান্ট গুগলে অনুসন্ধান বেড়ে গেছে।লোকজন ভেবেছিলেন, জনপ্রিয় মেক্সিকান বিয়ার ‘করোনা এক্সট্রা বিয়ার’ থেকেই ছড়িয়েছে এটি। করোনাভাইরাস নামকরণ মূলত সেখান থেকেই।গত ১৮ থেকে ২৬ জানুয়ারি পর্যন্ত করোনা বিয়ার ভাইরাস নিয়ে খোঁজ বেড়েছে দুই হাজার ৩০০ শতাংশ। আর বিয়ার ভাইরাস লিখে খোঁজ বেড়ে যায় ৭৪৪ শতাংশ।
আর বিয়ার করোনাভাইরাস লিখে খুঁজেছিলেন ৩২৩৩ শতাংশ মানুষ। এই পরিস্থিতিতে ওই বিয়ার কোম্পানিকে জোর গলায় বলতে হয় যে, ওই ভাইরাসের সঙ্গে তাদের কোনো যোগাযোগ নেই।
মেক্সিকোর কোম্পানি সের্ভেসেরিয়া মোদেলোর তৈরি এই বিয়ার যুক্তরাষ্ট্রের রপ্তানি করে কনস্টেলেশন ব্র্যান্ড।
এই ব্র্যান্ডের পরিচালক ম্যাগি বোমান বলেন, আমরা ভীষণভাবে বিশ্বাস করি, গ্রাহকরা ভালো করেই বোঝেন— আমাদের ব্যবসা এবং ওই ভাইরাসের মধ্যে কোনো সম্পর্ক নেই।
লাতিন ভাষার শব্দ করোনা স্প্যানিশেও রয়েছে। আর করোনা বিয়ারের উৎস মেক্সিকো বলেই মানুষের মধ্যে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে।
প্রাচীন গ্রিক শব্দ করোন থেকে সপ্তদশ শতকের দিকে লাতিনে আসে করোনা শব্দটি। করোন শব্দের অর্থ পুষ্পমাল্য বা পুষ্পমুকুট।
সূর্যের চারপাশে উজ্জ্বল যে আলোর বলয়, সাধারণভাবে পূর্ণগ্রাস গ্রহণের সময়ই কেবল দেখা যায়, তা ওই মুকুটের মত দেখায় বলে জ্যোতির্বিদরা একেও করোনা বলেন।
আবার ড্যাফোডিলের পাপড়ি বেষ্টনের মাঝে যে অংশটি ট্রাম্পেটের মত বেরিয়ে থাকে, সেটাকেও উদ্ভিদবিজ্ঞানে করোনা বলে।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.