রোনাল্ডোর গোল আর রেকর্ড এখন হাত ধরাধরি করেই চলে




রোনাল্ডোর গোল আর রেকর্ড এখন হাত ধরাধরি করেই চলে


ভেরোনার মাঠে নিজের কাজটা ঠিকই করে দিয়েছিলেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। দ্বিতীয়ার্ধে তার গোলেই এগিয়ে যায় জুভেন্টাস। রোনাল্ডোর গোল আর রেকর্ড এখন হাত ধরাধরি করেই চলে। এই গোলেও দারুণ এক রেকর্ড গড়েছেন পর্তুগিজ মহাতারকা। সেরি-এ লিগের ইতিহাসে জুভেন্টাসের প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে টানা ১০ ম্যাচে গোল করলেন। কিন্তু ব্যক্তিগত বড় অর্জনের ম্যাচে রোনাল্ডোকে দেখতে হল দলের হার। শেষ দিকে দুই গোল হজম করে শনিবার ভেরোনার কাছে ২-১ ব্যবধানে হেরেছে টানা আটবারের চ্যাম্পিয়নরা। লিগে শেষ তিন ম্যাচে দ্বিতীয় হারে জুভেন্টাসের শীর্ষস্থান হুমকির মুখে পড়ে গেছে। ২৩ ম্যাচে তাদের সংগ্রহ ৫৪ পয়েন্ট। এক ম্যাচ কম খেলে ৫১ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে ইন্টার মিলান।

দল কিছুটা ধুঁকলেও রোনাল্ডো আছেন আগুনে ফর্মে। মাত্রই ৩৫তম জন্মদিন উদযাপন করা পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড গোল করছেন মুড়ি-মুড়কির মতো। লিগে এবার ২০ গোলের ১৫টিই করেছেন শেষ ১০ ম্যাচে। রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে লা লিগায় টানা ১০ ম্যাচে গোল করেছিলেন দু’বার। এবার করলেন সেরি-এ লিগে। রোনাল্ডোর আগে লিগে জুভেন্টাসের পক্ষে সর্বোচ্চ টানা নয় ম্যাচে গোলের কীর্তি ছিল ডেভিড ত্রেজেগের। সব দল মিলিয়ে সেরি-এ লিগে গ্যাব্রিয়েল বাতিস্তুতা ও ফ্যাবিও কাড়লিয়ারেল্লার টানা ১১ ম্যাচে গোলের রেকর্ড রোনাল্ডোর দৃষ্টিসীমায় চলে এসেছে।

শনিবার ঘরের মাঠে ম্যাচের প্রথম ৩৫ মিনিটে অধিকাংশ সময় বল দখলে রাখার পাশাপাশি আক্রমণেও আধিপত্য করে ভেরোনা। খেলার ধারার বিপরীতে ১৯ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারত জুভেন্টাস। পাল্টা আক্রমণে মাঝমাঠ থেকে বল পায়ে দ্রুত এগিয়ে ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে শট নেন দগলাস কস্তা, ভাগ্যের ফেরে বল ক্রসবারে বাধা পায়।  দুই মিনিট পর তরুণ আলবেনিয়ান ডিফেন্ডার মারাশ কুমবুলার দুর্বল হেড ঠেকাতে গিয়ে তালগোল পাকান গোলরক্ষক ভয়চেখ স্ট্যাসনি। বল যায় গোললাইন পেরিয়ে। তবে ভিএআরের সাহায্যে রেফারি অফসাইডের বাঁশি বাজালে সে যাত্রায় বেঁচে যায় জুভেন্টাস।

প্রথমার্ধের শেষ ১০ মিনিটে প্রবল চাপ বাড়ায় তারা। ৩৬ মিনিটে রোনাল্ডোর শট পোস্টে লাগে। কয়েক মিনিটের ব্যবধানে তার আরও দুটি প্রচেষ্টা লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। বিরতির পর একক নৈপুণ্যে দলকে এগিয়ে দেন রোনাল্ডো। ৬৫ মিনিটে মাঝমাঠের আগে থেকে বল পায়ে দ্রুত এগিয়ে যান তিনি। মাঝে রদ্রিগো বেন্তানকুরের সঙ্গে একবার বল দেয়া-নেয়া করে ডিফেন্ডারদের পেছনে ফেলে ডি-বক্সে ঢুকে ঠাণ্ডা মাথায় কোনাকুনি শটে ঠিকানা খুঁজে নেন পর্তুগিজ ফরোয়ার্ড।  তবে সমতায় ফিরতে বেশি সময় নেয়নি ভেরোনা। ৭৬ মিনিটে ডি-বক্সের ভেতর থেকে কোনাকুনি শটে লক্ষ্যভেদ করেন ফাবিও বোরিনি। ১০ মিনিট পর পেনাল্টি থেকে জয়সূচক গোলটি করেন জামপাওলো পাজ্জিনি। ডি-বক্সে লিওনার্দো বোনুচ্চির হ্যান্ডবলে স্পট-কিকের বাঁশি বাজান রেফারি।

Loading...

No comments

Powered by Blogger.