গঙ্গাসাগরে মাঘী পূর্ণিমার পূণ্য লগ্নে পূণ্যার্থীদের ভিড়




 গঙ্গাসাগরে মাঘী পূর্ণিমার পূণ্য লগ্নে পূণ্যার্থীদের ভিড় 


দক্ষিণ ২৪ পরগনা সর্ববৃহৎ মেলা হচ্ছে গঙ্গাসাগর মেলা।  গঙ্গাসাগর মেলার পরেই মনে পড়ে মাঘী পূর্ণিমার মেলা।  মাঘী পূর্ণিমার মেলাকে ঘিরে চলে বিরাট মহাযজ্ঞ।  দক্ষিণ ২৪ পরগনার সাগরদ্বীপের এই মেলাকে কেন্দ্র করে এক সপ্তাহ আগে থেকে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলা প্রশাসন, সাগর ব্লক প্রশাসন চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিয়েছে ।  পঞ্জিকা মতে শনিবার দুপুর একটার সময় মাঘী পূর্ণিমার পূণ্য লগ্নে শুরু হয়েছে।  রবিবার দুপুর দেড়টা পর্যন্ত থাকবে এই মাঘী পূর্ণিমার মেলা।  শনিবার বিকেলে সাগর বিচে ২৬ জন পুরোহিত হোম যজ্ঞ করে মাঘী পূর্ণিমা আরতি করেন।  এই আরতি শেষ হবে তখনই, যখন গঙ্গার জল এই আরতি স্থানে চলে আসবে।  শনিবার থেকে মাঘী পূর্ণিমার পূণ্য লগ্নে পূণ্যার্থীদের ভিড় কানায় কানায় পরিপূর্ণ সাগরদ্বীপ। কোথাও তিল ধারণের জায়গা নেই।  সুন্দরবন উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান সাগর বিধায়ক বঙ্কিমচন্দ্র হাজরা এদিন সাংবাদিকদের সামনে জানান, এখনো পর্যন্ত তিন থেকে চার লাখ পুণ্যার্থী গঙ্গাসাগরে ত্রসেছেন মাঘী পূর্ণিমায় স্নান করতে।  কুলপি থেকে এসেছেন চন্দ্রশেখর সাহা।   তিনি জানালেন, গঙ্গাসাগর মেলা থেকেও মাঘী পূর্ণিমার মেলা মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে কারন এর একটা ঐতিহাসিক ব্যাখ্যা রয়েছে। সব তীর্থ বার বার গঙ্গাসাগর একবার নয় বারবার।  পুলিশ প্রশাসনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, পূর্ণিমার মেলাকে কেন্দ্র করে আরো দুদিন ব্যাপী মেলা চলবে এবং আমরা সব রকম প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে।  তবে এখনো লক্ষাধিক পুণ্যার্থী রয়েছে কচুবেড়িয়া ঘাটে।  রবিবার ভোর থেকেই ১১৭ নম্বর জাতীয় সড়কে পুণ্যার্থীদের লম্বা লাইন।  চাকরি মহাকুমা প্রশাসন দাবি করেছে, পুণ্যার্থীদের পারাপারে আমরা সব রকম ভাবে তৈরি রয়েছে কোনরকম অসুবিধার সম্মুখীন হতে হবে না পুণ্যার্থীদের। 
Loading...

No comments

Powered by Blogger.