বিদ্যালয়ের বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় জ্যাভলিনের ফলা ছাত্রের মাথায়






বিদ্যালয়ের বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় জ্যাভলিনের ফলা ছাত্রের মাথায়

উলুবেড়িয়া: বিদ্যালয়ের বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা চলছিল বিদ্যালয় সংলগ্ন মাঠে। বিকাল তখন তিনটে সময় দ্বাদশ শ্রেনীর ছাত্রদের জ্যাভলিন থ্রো প্রতিযোগিতা চলছিল।  খেলা চলাকালীন হঠাৎ ছোড়া জ্যাভলিন ঢুকে গেল ষষ্ঠ শ্রেণীর এক ছাত্রের মাথায়। মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার বিকালে শ্যামপুরের নাওদা নয়নচন্দ্র বিদ্যাপীঠে। সৌরদীপ বেরা নামে আহত ছাত্র বর্তমানে কলকাতার এস এস কে এম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এস এস কে এমের চিকিৎসকরা  ছাত্রটির মাথা থেকে জ্যাভলিনের ফলা বের করার জন্য অপারেশন শুরু করেছে।

 জানা গেছে গত শনিবার থেকে বিদ্যালয়ের মাঠে বাৎসরিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে । সোমবার ছিল শেষ দিন। বিদ্যালয় সূত্রে খবর এদিন বিকাল ৩টে নাগাদ মাঠের একধারে জ্যাভলিন ছোড়ার সময় আচমকা সৌরদীপ সেখানে চলে আসলে জ্যাভলিনের ফলা সৌরদীপের মাথার ডান দিকে ঢুকে যায়। আচমকা এই ঘটনা ঘটে যাওয়ার পরে বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা দ্রুত ছাত্রটিকে প্রথমে উলুবেড়িয়া মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যায় । সেখান থেকে কলকাতার এস এস কে এমে স্থানানতরিত করা হয়। বিদ্যালয়ের এই ঘটনা সর্ম্পকে  প্রধান শিক্ষক অরুনাভ বাজানি জানান যথেষ্ট সর্তকতার সঙ্গে এবং স্বেচ্ছাসেবক দিয়ে এলাকা ঘিরে রাখার পর জ্যাভলিন ছোড়া চলছিল।  আচমকা সৌরদীপ সেখানে চলে আসায় এই বিপত্তি ঘটে যায় । তিনি জানান ঘটনার পর থেকেই আমরা ৭ জন শিক্ষক ছাত্রটিকে নিয়ে হাসপাতালে চলে এসেছি। তিনি সৌরদীপের দ্রুত আরোগ্য কামনা করেন।

 শ্যামপুর উত্তর চক্রের বিদ্যালয় পরিদর্শক অমতি দাস জানান বিষয়টি নিয়ে উর্ধ্বতন কতৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। তাদের নির্দেশ মত ব্যবস্হা নেওয়া হবে। জানা গেছে আহত ছাত্রের বাড়ি বাগনান থানা এলাকার হারলেন গ্রাম পঞ্চায়েতের ভবানীপুরে । ছাত্রের বাবা সতীশ চন্দ্র বেরা কাঠের পালিশের কাজ করেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান ছাত্রের বাবা। এদিন ফোনে আহত ছাত্রের জেঠু হরিশ চন্দ্র বেরা ফোনে বলেন খেলা চলাকালীন কি ভাবে এ ধরনের ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে তিনি বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষের গাফিলতির আছে বলে প্রশ্ন তোলেন।

Loading...

No comments

Powered by Blogger.