রানীগঞ্জের মাটিতে রবীন্দ্র ঠাকুরের বংশধর





জয়ন্ত সাহা, আসানসোল :    রানীগঞ্জের  ঐতিহ্যবাহী নারায়ণ কুড়ি পীঠস্থান ইতিমধ্যেই হেরিটেজ হিসেবে ঘোষিত হয়েছে ভারতের সর্বপ্রথম কয়লা খনির প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুরের সপ্তম প্রজন্মের সদস্য সুদীপ্ত ঠাকুর এবার পৌষ সংক্রান্তির দিন হাজির হলেন সেই নারান কুড়ি পীঠস্থানে। ভারতের প্রথম কয়লা খনি হিসেবে স্বীকৃত এই স্থানকে হেরিটেজ ঘোষণার জন্য ব্যাপক প্রাণপাত দেখা যাচ্ছে নারায়ণপুরে হেরিটেজ কমিটি কে। এবার মকর সংক্রান্তি মেলা উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে দামোদর নদ তটোবর্তী এলাকায় মথুরা চন্ডী মন্দির প্রাঙ্গণে হাজির হলেন ঠাকুর পরিবারের সপ্তম প্রজন্মের সদস্য সুদীপ্ত ঠাকুর। প্রায় প্রতি বছরই এই মথুরা চন্ডী ঘাটে মকর সংক্রান্তির মেলা বসে দেখা যায় এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি তিন দিনব্যাপী নানা অনুষ্ঠানে প্রথম দিন খিচুড়ি ভোজের আয়োজন করেন উদ্যোক্তারা সেখানে প্রায় ১০হাজারেরও বেশি মানুষ জনের খিচুড়ি ভোগ বিলি করা হয়। এদিন প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুরের বিভিন্ন স্মৃতিবিজড়িত বিষয়কে প্রত্যক্ষ করে সুদীপ্ত ঠাকুর ওই এলাকায় আগত মানুষজনের খিচুড়ি বিলি করেন। পরে দামোদর নদ পরিদর্শনের পর ও প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুরের আবক্ষ মূর্তিতে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন করে তিনি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান মঞ্চে হাজির হন । একই সাথে ইয়ে দিন হাজির হতে দেখা যায় ওই এলাকার বিধায়ক তথা এডিডি এর চেয়ারম্যান তাপস বন্দ্যোপাধ্যায় কে, আয়োজকরা তাদের সম্মানিত করার সাথেই এই এলাকার ঐতিহ্য ধরে রাখার নানান বিষয় তুলে ধরেন সুদীপ্ত বাবু ও আগত মানুষজন ওদের সামনে। এই সাংস্কৃতিক মঞ্চে এদিন বক্তব্য রাখতে গিয়ে এলাকার বিধায়ক কিছুটা আবেগপ্রবণ হয়ে এলাকায় ভৌগলিক অবস্থান বদল হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করে কিভাবে ঐতিহ্যকে ধরে রাখা উচিত তা নিয়ে বক্তব্য পেশ করেন। সেই বক্তব্যে অবৈধ কারবারের বিষয়েও সরব হন বিধায়ক। ওই একই মঞ্চে সুদীপ্ত বাবু বক্তব্য রাখতে গিয়ে জানান যে এই এলাকার মানুষের প্রতি তিনি কৃতজ্ঞ তাদের পরিবারের সদস্যদের প্রাচীন ঐতিহ্যকে এলাকার মানুষ বুক আগলে ধরে রাখার বিষয় লক্ষ্য করে তিনি আপ্লুত বলেই জানান তার বক্তব্যে। জানা গেছে রানীগঞ্জের মথুরা চন্ডী মন্দির কমিটির এই মেলা চলবে 3 দিন ব্যাপী মেলাকে ঘিরে বিভিন্ন দোকানপাট ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন উদ্যোক্তারা।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.