কালো শাড়ির ফ্যাশনে ব্যতিক্রমী প্রতিবাদ নারীদের


ধর্মীয় অন্ধ অনুশাসন এবং পুরুষ শাসিত সমাজ ব্যবস্থার বিরুদ্ধে কালো রঙের শাড়ির মাধ্যমে প্রতিবাদ করছেন এক শাড়ি ডিজাইনার। এর মাধ্যমে নারীদের জীবনে ‘অদৃশ্য বাধা’ ও ধর্মীয় কুসংস্কারের বিষয়টি ফুটিয়ে তুলছেন তিনি।

‘এইটিন শেডস্ অফ ব্ল্যাক’ নামে একটি নতুন ক্যাম্পেইন চালু করেছেন শর্মিলা নায়ার নামের ওই শাড়ি ডিজাইনার। এতে ১৮ জন নারী তার ডিজাইন করা কালো রঙের অপূর্ব সুন্দর সব শাড়ি পরেছেন, এবং তারা প্রতিদিনের জীবনে যেসব সূক্ষ্ম বৈষম্যের মুখোমুখি হচ্ছেন, সে সম্পর্কে খোলামেলা কথাবার্তা বলেছেন।
কালো রঙের শাড়ি ডিজাইন করে মূলত ভারতীয় সমাজে যেসব প্রচলিত সামাজিক ও রাজনৈতিক ধ্যান-ধারণা রয়েছে সেগুলোকে চ্যালেঞ্জ করছেন এই নারী।
শর্মিলা নায়ার বিবিসিকে বলেন, গত বছর ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য কেরালায় হিন্দু ধর্মের সবচেয়ে পবিত্র মন্দিরগুলোর একটি সবরিমালা মন্দিরে নারীদের প্রবেশাধিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা বাতিল করে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট যে ঐতিহাসিক রায় দিয়েছিল, সেই ঘটনা তাকে এই ক্যাম্পেইন শুরু করতে অনুপ্রাণিত করেছে।
নায়ার বলেন, ঐ প্রথার বিরুদ্ধে বিক্ষোভে এত বিপুল সংখ্যক নারী যোগ দিয়েছিলেন যে এটা দেখে তিনি ‘হতবাক’ হয়ে গিয়েছিলেন।আর সেই ঘটনা থেকে শুরু হয় ‘এইটিন শেডস্ অফ ব্ল্যাক’ আন্দোলন। সংখ্যাটি ১৮ এই কারণে যে সবরিমালা মন্দিরে ঢুকতে ১৮টি সিঁড়ি পার হতে হয়। আর ব্ল্যাক বা কালো রঙের মানে হল সবাইকে ঐ মন্দিরে কালো পোশাক পরে ঢুকতে হয়।
ব্যতিক্রমী এই ফ্যাশন ডিজাইনার বলেন, আমাদের বলা হয় মাসিক চলার সময় আমার দেহ অপবিত্র, এবং আমরা সেটাকে মেনে নিতে বাধ্য হই। এমনকি এখনও পিরিয়ড চলার সময় আমার অনেক বন্ধু কোন মন্দিরে যান না, বা কোন ধর্মীয় উপাসনা করেন না।
তাই আমি ভাবলাম, দেবীর অধিকার রক্ষার জন্য অনেক নারী যদি লড়াই করতে পারেন, তাহলে নারীর অধিকার রক্ষার লড়াইয়েও বহু নারী সামিল হতে পারবেন না কেন? এই লড়াইয়ে যদি বহু নারী যোগ দেন, তাহলে ভাবুন, পরিস্থিতি কেমন দাঁড়াবে?
এই ক্যাম্পেইনের লক্ষ্য হচ্ছে শাড়িকে ব্যবহার করে অন্ধ ধর্মীয় অনুশাসন এবং পুরুষ শাসিত সমাজ ব্যবস্থার ভিত্তি, বর্তমানে অচল সব চিন্তাভাবনাকে চ্যালেঞ্জ করা।
এই ক্যাম্পেইনে নানা ধরনের ইস্যু নিয়ে কথাবার্তা বলা হয়। এর মধ্যে রয়েছে: বডি শেমিং বা দেহসৌষ্ঠব নিয়ে লজ্জা, গায়ের রঙের ওপর ভিত্তি করে বৈষম্য, বাল্য বিবাহ, মাসিককে ঘিরে সামাজিক লজ্জা, বর্ণবৈষম্য, এবং এমনকি নারীদের জন্য পরিষ্কার টয়লেটের অভাব ইত্যাদি।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.