সংখ্যা গরিষ্ঠতা হারানোর ভয়, বিধায়কদের পাঁচতারা হোটেলে রাখল শিবসেনা

Image result for maharashtra bjp shivsena

দুদিনের মধ্যে সরকার গঠন না হলে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়ে যাবে। তাই কখনও গডকড়ি কখনও বা কোশিয়ারির কাছে দরবার শুরু করেছে মহারাষ্ট্রের বিজেপি জোট। শিবসেনার দাবি মানতে নারাজ দেবেন্দ্র ফডনবিশ। তবে শিবসেনার বিধায়কদের ভাঙিয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠতার বিচারে জোট শরিককে পিছনে ফেলতে তাদের তৎপরতা কম নেই। এরমধ্যেই কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে বেশ কয়েকজন সেনা বিধায়ককে টাকার অংক জানিয়ে যোগাযোগও করেছে বিজেপি নেতৃত্ব। তবে শিবসেনাও ছেড়ে দেওয়ার পাত্র নয়। দলীয় বিধায়কদের বৃহস্পতিবার শহরে এক নামকরা পাঁচতারা হোটেলে থাকার বন্দোবস্ত কের ফেলেছে। বান্দ্রা-কুরলা অঞ্চলের ওই পাঁচতারা হোটেলই আপাতত শিবসেনা বিধায়কদের আস্তানা।
Image result for maharashtra bjp shivsena


এদিকে, সঞ্জয় রাউত বলেছেন, “মহারাষ্ট্রে কোনও দল ভাঙবে না। আমাদের বিধায়করা দলের প্রতি অনুগত। যাঁরা আমাদের বিধায়কদের নিয়ে গুজব রটাচ্ছেন, তাঁরা যেন নিজেদের বিধায়কদের সামলে রাখেন।” এর মধ্যে জানা যায়, মাতুশ্রীতে শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরের বাড়িতে দুপুরে বৈঠক শুরু হয়েছে। সেখানে উদ্ধব সিদ্ধান্ত নেবেন, বিধায়কদের হোটেলে রাখা হবে কিনা। যদিও সঞ্জয় রাউত সেকথা উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, উদ্ধবজি বিধায়কদের সঙ্গে শিবসেনার পলিসি নিয়ে আলোচনা করবেন। অন্যদিকে সরকার গঠন নিয়ে ফের রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারির দরবারে হাজির মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফডনবিশ। শুক্রবারের মধ্যে সরকার গঠিত না হলে মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি হবে। মঙ্গলবার ফডনবিশের ঘনিষ্ঠ বিজেপি নেতা সুধীর মুনগানতিয়ার বলেন, “একটা সুখবর আছে। যাই ঘটুক না কেন, বিজেপি-সেনা জোটই সরকার গড়তে চলেছে।” অন্যদিকে সঞ্জয় রাউত বলেন, “মুনগানতিয়ার আমাদেরও একটা সুখবর দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, শিবসেনা থেকে কেউ মুখ্যমন্ত্রী হবেন।”
Loading...

No comments

Powered by Blogger.