হ্যাশট্যাগ মাই ফেবারিট ইন্ডিয়ান ফুড




       হ্যাশট্যাগ মাই ফেবারিট ইন্ডিয়ান ফুড

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অধ্যাপক টম নিকোলস রোড়ে আইল্যান্ডে ইউএস নেভাল ওয়ার কলেজের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ের শিক্ষক। নিকোলসের ‘ভারতীয় খাবার ভয়ংকর'  লেখা টুইট নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে নেট দুনিয়ায় । বিবিসি জানায়, বিতর্কিত খাবার নিয়ে মানুষের মন্তব্য জানতে চেয়ে এক টুইটার ব্যবহারকারীর করা টুইটে নিকোলস তার নিজের মতামত জানাতে গিয়েই ভারতীয় খাবার নিয়ে ওই নেতিবাচক মন্তব্য করেন। তার এ মন্তব্য সাংস্কৃতিক অসহিষ্ণুতা এবং আন্তর্জাতিক রান্না নিয়ে তার বর্ণবাদী মনোভাবের  প্রকাশ ঘটিয়েছে বলে উত্তপ্ত বিতর্ক শুরু হয়েছে।

নিকোলস লেখেন, “ভারতীয় খাবার ভয়ংকর অখাদ্য। অথচ আমরা এমন ভান করি যেন তা না।”
নিকোলসের এমন মন্তব্য অনেককেই ক্ষুব্ধ করেছে।তার মন্তব্য থেকে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হিসাবে মানুষের অভিজ্ঞতা এবং খাবার নিয়ে দেশটিতে অনেকেই কিভাবে বর্ণবাদী অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করছেন তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়েছে।
বেশিরভাগ ট্যুইটার ব্যবহারকারীই কড়া ভাষায় সমালোচনা করেছেন অধ্যাপক টম নিকোলসের। কেউ কেউ তার কথাগুলোকে ‘নীরস এক ঢালাও মন্তব্য’ বলে অভিহিত করেছেন।ভারতীয় খাবার নিয়ে নিকোলসের কটুক্তিতে গর্জে উঠেছেন দেশটির নামকরা রন্ধনশিল্পী পদ্মলক্ষ্মীও।
তিনি উলটে প্রশ্ন করেন, ‘আপনার জিহ্বায় কি আদৌ কোনও স্বাদ আছে! আরেকজন মন্তব্য করেন,“ভেবে দেখুন, কেমন নীরস জীবনের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন তিনি।”
নিউ ইয়র্কের এক সাবেক কৌঁসুলি প্রিত ভারারা বলেন,“টম আমি আপনাকে এক জায়গায় নিয়ে যাব।দেশকে এক করার সময় এসেছে ‘#বাটারচিকেনসামিট’। আরেকজন মন্তব্য করেন,‘নিকোলস হয়ত ভারতীয় খাবারের ১ শতাংশের কম চেখে দেখেছেন।একটি বিশাল বৈচিত্র্যময় দেশ থেকে যা আসে।”
পরে নিকোলসও স্বীকার করেন যে, তিনি কেবল যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের রেস্টুরেন্টে বসে ভারতীয় খাবার খেয়েছেন।
নিকোলসের মন্তব্য নিয়ে ভারতীয় গণমাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়েছে বর্ণবাদী বিতর্ক।চালু হয়েছে,‘হ্যাশট্যাগ মাই ফেবারিট ইন্ডিয়ান ফুড’। কেউ কেউ আবার যুক্তরাষ্ট্রের খাবারের বিরুদ্ধে পাল্টা মন্তব্য শুরু করেছেন।

Loading...

No comments

Powered by Blogger.