বাজিতে না হারলে অক্ষয়কে বিয়ে করতেন না টুইঙ্কল!


কখনও প্রিয়াঙ্কা তো কখনও শিল্পা শেট্টিসহ বলিউডের বহু অভিনেত্রীর সঙ্গে নাম জড়িয়েছে অক্ষয় কুমার। তবে নায়িকাদের হার্টথ্রব অক্ষয় কুমার শেষমেশ বিয়ে করেন টুইঙ্কল খন্নাকে।
জানা যায়, টুইঙ্কেলকে নাকি প্রথম দেখাতেই তার প্রেমে পড়ে গিয়েছিলেন অক্ষয়। টুইঙ্কেলও অক্ষয়ের প্রেমে পড়ে গিয়েছিলেন ক্রমে। তবে তাদের বিয়ের সিদ্ধান্তটা অনেকটা ফিল্মি স্টাইলে।
২০০০ সালে টুইঙ্কেলের ‘মেলা’ ফিল্ম মুক্তি পাওয়ার কথা। আমিরের বিপরীতে রূপা সিংহের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন টুইঙ্কেল। ফিল্মটা নিয়ে টুইঙ্কেল ভীষণ আশাবাদী ছিলেন। ফিল্মটা যে সুপারহিট হবে সেটা অক্ষয়কে জানিয়েছিলেন।
অক্ষয় কিন্তু সেটা মানতে পারেননি। তখনই টুইঙ্কেল বাজি ধরেছিলেন ওই ফিল্মটা নিয়ে। বাজিটা ছিল এরকম, যদি ফিল্মটা ফ্লপ করে তাহলে তিনি অক্ষয়কে বিয়ে করে নেবেন। ক্যারিয়ারের শীর্ষ মূহূর্তে বিয়ে করতে চাইছিলেন না টুইঙ্কেল। তাই এই বাজি ধরেন। কারণ তিনি এক প্রকার নিশ্চিত ছিলেন তিনি বাজি জিতবেনই।
কিন্তু মুক্তি পাওয়ার পর দেখা যায়, টুইঙ্কেল বাজি হেরে যান। ফিল্মটা বক্স অফিসে তেমন চলেনি। এরপর ২০০১ সালে অক্ষয়কে বিয়ে করেন টুইঙ্কেল।
ডিজাইনার বন্ধুর বাড়িতে মাত্র দু’ঘণ্টার একটি অনুষ্ঠান করে তারা বিয়ে করেছিলেন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিল মাত্র ৫০ জন অতিথি। সেই তালিকায় আমির খান, রাজনৈতিক নেতা অমর সিংহ এবং পরিচালক ধর্মেশ দর্শনের মত ঘনিষ্ঠ কয়েকজন অতিথি ছিলেন।
তারা যে সত্যিই বিয়ে করেছেন তা প্রথমে অনেকেই বিশ্বাস করতে পারেননি। তাদের দু'জনের প্রথম দেখা মুম্বাইয়ের একটা ফিল্মফেয়ার ম্যাগাজিনের ফটোশুটে। টুইঙ্কেলকে প্রথম দেখেই প্রেমে পড়েছিলেন অক্ষয়। টুইঙ্কেলরে সঙ্গে তোলা সেই প্রথম ফটোটা আজও সযত্নে রেখে দিয়েছেন তিনি।
তারপর ‘ইন্টারন্যাশনাল খিলাড়ি’ ফিল্মে একসঙ্গে অভিনয় করার সময় থেকেই কাছাকাছি আসতে শুরু করেন দু'জনে। অক্ষয়ের ঘন ঘন প্রেমে পড়া দেখে অনেকেই ভেবেছিলেন তাদের সম্পর্ক বেশি দিন টিকবে না। কিন্তু সবাইকে ভুল প্রমাণ করে ১৮ বছর ধরে সুখী দম্পতি তারা। আরভ এবং সিতারা নামে দুই সন্তানও রয়েছে তাদের।
অক্ষয়ের জীবনে অনেক প্রেম এসেছে। রবিনা টন্ডনের সঙ্গে দীর্ঘ তিন বছর ডেট করেছেন। তারা বিয়ে করার সিদ্ধান্তও নিয়ে ফেলেছিলেন। কিন্তু পরে তাদের সম্পর্ক ভেঙে যায়।
এক সময় রেখার সঙ্গেও অক্ষয়ের নাম জড়িয়েছিল। রবিনা নাকি তখন রেখাকে অক্ষয়ের থেকে দূরে থাকতে বলেছিলেন। তারপর তার জীবনে শিল্পা শেট্টি, পূজা বাত্রা, আয়েশা জুলকা এসেছেন। এমনকি টুইঙ্কেলকে বিয়ের পর প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার সঙ্গেও তার নাম জড়িয়েছিল।
প্রথম প্রথম নাকি টুইঙ্কেলও অক্ষয়কে নিয়ে দুশ্চিন্তায় ছিলেন। কিন্তু সময় যত এগিয়েছে, তাদের সম্পর্ক আরও মজবুত হয়েছে। গুজবে কান না দিয়ে অক্ষয়েই ভরসা রেখেছেন তিনি।
বিয়ের পর অভিনয় ছেড়ে দেন টুইঙ্কেল। ইন্টিরিয়র ডিজাইনার হন তিনি। তার প্রতিটা সিদ্ধান্তেই অক্ষয়কে পাশে পেয়েছেন টুইঙ্কেল।



Loading...

No comments

Powered by Blogger.