অচেনা মহিলার জন্য রক্ত দিয়ে নজির বালুরঘাটের সাংবাদিকের



বিশ্বদীপ নন্দী, বালুরঘাট- সাংবাদিকতা পেশার সাথে মানুষের সাহায্য করা ব্যাপার টা অতপ্রত জড়িত।দুধের শিশুর প্রান বাঁচাতে নিজেদের উদ্যোগে কলকাতায় পাঠানো হোক বা অনাহার ক্লিস্ট পরিবারের হাতে খাবার পৌঁছে দেওয়াই হোক। সাংবাদিকতার পাশাপাশি সমাজসেবার কাজের ক্ষেত্রে দক্ষিণ দিনাজপুর জার্নালিস্টস্ ক্লাবের সদস্যদের জুড়ি মেলা ভার। এবার  রক্তাল্পতার সমস্যায় আশঙ্কা জনক রোগীর জন্য রাতের বেলা ৩৫ কিলোমিটার পথ পেড়িয়ে রক্ত দান করে নজির সৃষ্টি করলেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা জার্নালিস্টস্ ক্লাবের সদস্য দুলাল সিংহ। জানা গেছে  গঙ্গারামপুর হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংকে নেগেটিভ গ্রুপের রক্তের স্টক শূণ্য, রক্তের অভাবে আশঙ্কাজনক অবস্থায় থাকা চিকিৎসাধীন মহিলাকে রক্ত দিলেন বালুরঘাটের এই সাংবাদিক। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর মহকুমার ঠ্যাঙ্গাপাড়া সংলগ্ন বাশকুড়ি এলাকার বাসিন্দা যমুনা রায় বৃহস্পতিবার দুপুর নাগাদ আশঙ্কাজনক অবস্থায় গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালে ভর্ত্তি হন। হাসপাতালে ভর্ত্তি পরবর্তী তার শারীরিক পরীক্ষা নিরীক্ষা করার পর চিকিৎসকরা দেখেন যমুনা রায়-এর রক্তে হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ মাত্র চার। চিকিৎসকরা যমুনা রায়-কে রক্ত দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এরপরেই চিকিৎসকরা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংক থেকে রুগীর পরিবারের সদস্যদের তিন প্যাকেট বি নেগেটিভ গ্রুপের রক্ত সংগ্রহ করার কথা বলেন। কিন্তু গঙ্গারামপুর হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংকে বি নেগেটিভ গ্রুপের রক্ত মজুত না থাকার কারনে এবং  শুক্রবার দিনভর হন্যে হয়ে যখন পড়শি উত্তর দিনাজপুর ও মালদা জেলা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংকেও বি নেগেটিভ গ্রুপের রক্ত মজুত কারনে রক্ত না পাওয়ার কারনে রুগীর পরিবারের সদস্যরা ঘোরতর আশঙ্কার মধ্যে তখন বিষয়টি লোকমুখে জানতে পারেন বালুরঘাটের সাংবাদিক দুলাল সিংহ। বিষয়টি জানবার সাথে সাথে তিনি  গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওনা হন এবং শুক্রবার রাত্রেই গঙ্গারামপুর মহকুমা হাসপাতালের ব্লাড ব্যাংকে ছুটে  গিয়ে যমুনা রায়-এর জন্য নিজের বি নেগেটিভ গ্রুপের রক্ত দান করেন।
বিপদের সময়ে নিজের রক্ত দিয়ে অপরিচিত ঐ পরিবারের পাশে দাঁড়ানোয় খানিকটা চিন্তামুক্ত যমুনা রায়-এর পরিবারের সদস্যরা ঐ সাংবাদিককে হাজারো ধন্যবাদ জানালেও সাংবাদিক দুলাল সিংহ বলেন বিপদে মানুষের পাশে থাকা এটাই বালুরঘাট-দক্ষিণ দিনাজপুরের রীতি। তিনি আরও জানান ওই রোগীকে বাঁচতে আরও রক্তের প্রয়োজন আছে আশাকরি ওই মহিলাকে বাঁচতে  আজ আরও বেশ কিছু সহৃদয় ব্যাক্তি এগিয়ে আসবেন।

Loading...

No comments

Powered by Blogger.