হাসপাতালে বিড়ালের উপদ্রবে অতিষ্ঠ রোগি থেকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ!



   হাসপাতালে বিড়ালের উপদ্রবে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে রোগি ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ । বাধ্য হয়ে বিড়াল তাড়ানোর জন্য রোগিরা হাতে লাঠি তুলে নিয়েছেন। উলুবেড়িয়া এএসআই হাসপাতালের ঘটনা। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায় হাসপাতালে বেশ কয়েকটি বিড়াল উপদ্রব করছে । মাঝে মাঝে রোগিদের বেডে উঠে পড়ছে কখনো আবার তাদের খাবারে মুখ দিচ্ছে । এতে রোগিরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়ছে। হাসপাতাল সুপার চিকিৎসক হিমাদ্রি মুখোপাধ্যায় বলেন বিড়াল তাড়ানোর কোন উপায় দেখতে পারছিনা। বিড়াল হাসপাতালে না ঢোকার জন্য ওয়াডের সমস্ত জানালাতে জাল লাগিয়ে দিয়েছি। বিড়াল দেখতে পেলেই হাসপাতালের প্রহরীরা তাড়া করে । তার পরেও কোথা থেকে আবার ওয়ার্ডের মধ্যে ঢুকে পড়ে। হিমাদ্রি বাবু বলেন খবর নিয়ে দেখেছি উলুবেড়িয়া পুরসভার বিড়াল ধরে নিয়ে যাওয়ার কোন পরিকাঠামো নেই। তাই তারা ধরতে পারবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন ।  হাসপাতালের এক নার্স বলেন বিড়ালগুলো যেখানে সেখানে পায়খানা করে হাসপাতাল নোংরা করছে। যেখানে সেখানে বাচ্ছা পাড়ছে। এত বিড়াল হয়ে গেছে, যে ভয় পায় কখন এসে আঁচড় কেটে দেবে।   ভর্তি থাকা এক রুগি অর্ধেন্দু মন্ডল বলে বিড়াল তাড়ানোর জন্য লাঠি রাখতে হয়েছে। যখন তখন এসে বেডে শুয়ে পড়ছে। খাবারে মুখ দিচ্ছে । চারিদিকে লোম উড়ছে। মাঝে মাঝে ভয় হয় এক রোগ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি পাছে বিড়ালের জন্য কি অন্য রোগ শরীরে ঢুকে যাবে। হাসপাতালের সুপার হিমাদ্রি বাবু বলেন স্বাস্থ্য দফতরের কড়া নির্দেশ আছে হাসপাতালে বিড়াল ঘোরাঘুরি না করে । কিন্তু কি করে আটকাবো ভাবতে পারছিনা। উলুবেড়িয়া পুরসভার চেয়ারম্যান অভয় দাস বলেন পুরসভার বিড়াল ধরার কোন পরিকাঠামো নেই। তবে আমরা এই সব বিড়াল কুকুর ধরার জন্য হাওড়া কর্পোরেশনের সাথে যোগাযোগ করলে তারা আমাদের সাহায্য করে। তবে উলুবেড়িয়া পুরসভার খুব শীঘ্রই পরিকাঠামো তৈরি করবে। উলুবেড়িয়া হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ যদি উলুবেড়িয়া পুরসভায় যোগাযোগ করেন তাহলে আমরা হাওড়া কর্পোরেশনের সাথে যোগাযোগ করে ওই বিড়ালগুলো ধরে নিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করবো। 
Loading...

No comments

Powered by Blogger.