সবজি হিসাবে শিমের উপকারিতা


শিম অন্যতম জনপ্রিয় সবজি। সাধারণত এটি শীতকালিন সবজি তবে এখন সারাবছর শিম পাওয়া যায়। এটা বেশ প্রোটিন সমৃদ্ধ। ভাজা, ভর্তা এবং ঝোল-সব প্রকারেই খাওয়া যায় আশযুক্ত এ সবজিটি। অথচ পুষ্টিগুণে ভরপুর এ সবজিটিতেও আছে সামান্য কিছু ক্ষতিকর উপাদান। আছে অল্প কিছু ক্ষতিকর দিকও।   
আমাদের এখানে শিমের চাষ হয়। প্রতি ১০০ গ্রাম শিমে ৮৬ দশমিক ১ গ্রাম জলীয় অংশ আছে। শিমে খনিজ উপাদান আছে ০ দশমিক ৯ গ্রাম, আঁশ ১ দশমিক ৮ গ্রাম ও ক্যালোরি বা খাদ্যশক্তি আছে ৪৮ কিলো ক্যালোরি। এছাড়াও শিমে ৩ দশমিক ৮ গ্রাম প্রোটিন, ৬ দশমিক ৭ গ্রাম শর্করা, ২১০ মি.গ্রাম ক্যালসিয়াম ও ১ দশমিক ৭ মি.গ্রাম লৌহ পাওয়া যায়। এসব উপাদান ছাড়াও শিম জিঙ্ক, ভিটামিন সি ও নানা রকম খনিজ উপাদানে সমৃদ্ধ । 
নিচে শিমের ১০ উপকারিতা জেনে নিনঃ- 
১। গর্ভবতী মহিলা ও শিশুর অপুষ্টি দূর করতে শিম বেশ কার্যকারী।
২। খনিজ উপাদানে সমৃদ্ধ হওয়ায় শিম চুল পড়া কমাতে ও চুলের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে।
৩। কোষ্ঠকাঠিণ্য দূর করে ও কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।
৪। নিয়মিত শিম খেলে তা ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখতে সাহায্য করে।
৫। শিমে সিলিকনজাতীয় উপাদান আছে যা হাড় সুগঠিত করে।
৬। কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে ও শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে শিম সাহায্য করে।
৭। নিয়মিত শিম খেলে হৃদরোগের ঝুঁকি কমে আসে।
৮। শিমের ফুল রক্ত আমাশয় দূর করতে সাহায্য করে।
৯। এ সবজিতে ভিটামিন বি সিক্স বেশি পরিমাণে থাকায় তা স্নায়ুতন্ত্র সুস্থ রাখে ফলে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি পায়।
১০। এ ছাড়াও কোলন ক্যানসার প্রতিরোধেও এটি কার্যকর ভূমিকা রাখে। ভাজিও খাওয়া যায়।


Loading...

No comments

Powered by Blogger.