দশ গোলের শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ফল আসলো টাইব্রেকে



দশ গোলের শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ফল আসলো টাইব্রেকে

লিভারপুলকে তাদেরই ঘরের মাঠে দারুণভাবে চেপে ধরেছিল আর্সেনাল। দশ গোলের ম্যাচে ছয়টিই নিজেরা করে সম্ভাবনাও জাগিয়েছিল জয়ের। কিন্তু শেষপর্যন্ত হারতে হয়েছে টাইব্রেকার নামক ভাগ্য পরীক্ষায়।

বুধবার রাতে অ্যানফিল্ডে লিগ কাপের শেষ ষোলোর ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল আর্সেনাল ও লিভারপুল। ম্যাচে গোল হয়েছে ১০টি। যার ৬টিই করেছে আর্সেনালের খেলোয়াড়রা। কিন্তু এর একটি আত্মঘাতী গোল হওয়ায় মূল ম্যাচ শেষ হয় ৫-৫ সমতায়।

যার ফলে জয়ী দল নির্ধারণের জন্য ম্যাচ গড়ায় টাইব্রেকারে। যেখানে আর্সেনালের পক্ষে চতুর্থ শট নেয়া দানি সেবায়োসকে ঠেকিয়ে লিভারপুলের জয় নিশ্চিত করেন তরুণ গোলরক্ষক কায়োমিন কেলেহার। ফলে ৫-৫ ড্র ম্যাচে ৫-৪ গোলে জয়ী হয় লিভারপুল, পৌঁছে যায় টুর্নামেন্টের শেষ আটে।

ভাগ্যের ছোঁয়াটা ষষ্ঠ মিনিট থেকেই পেতে শুরু করে লিভারপুল। নিজেদের জালেই বল প্রবেশ করান আর্সেনালের স্ক্রোডান মুস্তাফি। তবে ১৯ মিনিটের সময়ই ম্যাচে সমতা আনেন লুকাস টরেইরা। এর মিনিট সাতেক পর আর্সেনালকে এগিয়ে দেন গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেল।

শুধু ২-১ গোলে এগিয়ে দিয়েই থামেননি মার্টিনেল। ম্যাচের ৩৬ মিনিটের মাথায় নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন তিনি, স্কোরলাইন হয় ৩-১। ততক্ষণ পর্যন্ত চারটি গোলই আর্সেনালের খেলোয়াড়দের।

অবশেষে ৪৩ মিনিটের সময় লিভারপুলের খেলোয়াড় গোল করে। তবে সেটিও আবার পেনাল্টি থেকে। ১৬ বছর বয়সী মিডফিল্ডার হার্ভে এলিয়ট ডি-বক্সে ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টি পায় লিভারপুল। সফল স্পটকিকে ব্যবধান কমান জেমস মিলনার।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে আবারও ব্যবধান বাড়ায় আর্সেনাল। ৫৪ মিনিটে মাইটল্যান্ড নিলসের গোলে স্কোরলাইন হয় ৪-২। তবে মিনিট চারেক পর ব্যবধান আবারও কমায় লিভারপুল। এবার গোল করেন অ্যালেক্স ওক্সলেড চ্যাম্বারলিন। এর চার মিনিট পর ম্যাচে সমতা ফেরান ডিভক অরিগি।

তবে ৭০ মিনিটের মাথায় আবারও আর্সেনালকে এগিয়ে দেন জো উইলক। মনে হচ্ছিলো এটিই হতে যাচ্ছে তাদের জন্য জয়সূচক গোল। কিন্তু অতিরিক্ত যোগ করা সময়ে সমতাসূচক গোল করে ম্যাচটি টাইব্রেকারে নিয়ে যান অরিগি। যেখানে বাজিমাত করে লিভারপুল।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.