পণের বলি গৃহবধূ



 জয়ন্ত সাহা, আসানসোলঃ     পণের দাবিতে এক গৃহবধূকে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা বারাবনিতে ৷ ঘটনাটি ঘটেছে বারাবনি থানার অন্তর্গত অলিপুর অঞ্চলে ৷ স্থানীয় সূত্রে খবর ২০১১ সালে জামুড়িয়ার শেখপুরের বাসিন্দা দীপক ঘোষের মেয়ে শিখা ঘোষের সঙ্গে বারাবনির অলিপুর অঞ্চলের বাসিন্দা অমিত ঘোষের বড় ছেলে জয়ন্তর বিয়ে হয় ৷ প্রশান্তর বক্তব্য অনুসারে পুজোর আগে হিন্দু রীতি অনুসারে ষাট কলাই তথা বাড়ির সকলের নতুন পোশাক দিতে গত ২৮ তারিখে বারাবনির অলিপুরে শিখার শ্বশুর বাড়িতে উপস্থিত  হয় সে ৷ কিন্তু শ্বশুর বাড়িতে শিখার দীর্ঘক্ষণ অনুপস্থিতিতে প্রশান্তর সন্দেহ হওয়ায় শিখার শাশুড়িকে জিজ্ঞসাবাদ করে জানতে পারে রান্নায় অসাবধানতার কারণে শিখা আগুনে হাত পুড়িয়ে আসানসোল জেলা হাসপাতালে ভর্তি ৷ এরপরেই প্রশান্ত তার পরিবারের লোককে আসানসোল জেলা হাসপাতালে খোঁজ নিতে পাঠালে শিখার বয়ান অনুসারে জানা যায় , প্রায় এক সপ্তাহ শিখা আসানসোল জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৷ শিখার দেহে পেট্রল ঢেলে পুড়িয়ে মেরে ফেলার চেষ্টা হয়েছিল ৷ ঘটনার জেরে শিখার শরীরে ৭০% পুড়ে যায় ৷ বর্তমানে সে আসানসোল জেলা হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে লড়াই করছে ৷ এর পরেই সোমবার রাতে বারাবনি থানায় শিখার পরিবারের পক্ষ থেকে শিখার শ্বশুর বাড়ির বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ জানানো হয় ৷ অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ তদন্তে নেমে  অভিযুক্ত জয়ন্ত ঘোষ ও তার বাবা অমিত ঘোষ এবং জয়ন্তর ভাইকে গ্রেপ্তার করে ৷
Loading...

No comments

Powered by Blogger.