ষাঁড়ের নাম সুলতান, করে মদ পান!



একেই বলে উপহাস! গরু খায় মদ, সেফাতুল্লার ভক্তরা খায় বাঁশ। সেফাতুল্লা সেফু অনলাইনে প্রতিদিন এসে তার ভক্তদের মদ খেতে প্ররোচিত করেন, যারা গরীব ভক্ত তাদের বলেন শুটকি খেতে। সেফাতুল্লার ‘গরীব’ ভক্তরা মদের বদলে শুটকি খাচ্ছে কিনা জানা না গেলেও,  হরিয়ানা রাজ্যের একটি ষাঁড় গরু নিয়মিত মদ পান করার কথা জানা গেছে। প্রতি সন্ধ্যার রুটিন করে সে মদ্যপান করে থাকে।

নাম সুলতান। এই সুলতান  সবচেয়ে বড় এবং সবচাইতে বেশি দামি ষাঁড়। তার খাদ্য তালিকা দেখেই ভিড়মি খাওয়ার মতো অবস্থা। প্রতিদিন এই সুলতান ৩৩ পাউন্ড আপেল, ৪৪ পাউন্ড গাজর, ২২ পাউন্ড শস্যদানা এবং ২২ পাউন্ড ঘাসখেয়ে থাকে। এছাড়া সে ১০ কেজি দুধও দপান করে প্রতিদিন। এতো কিছুর পর তার প্রতিদিনের সন্ধ্যার আকর্ষণ হলো নামি দামি ব্র‍্যান্ডের মদ খাওয়া। মজার ব্যাপার হলো, প্রতিদিন সে একই ব্র‍্যান্ডের মদ খায় না, একেকদিন খায় একেকটা!
ষাঁড় সুলতানের সাপ্তাহিক মদ খাওয়ার রুটিন-

রবিবার – টিচার্স (teacher’s)
সোমবার – ব্ল্যাক ডগ (black dog)
বুধবার – হান্ড্রেন্ড পাইপারস (100 pipers)
বৃহস্পতিবার – ব্যালেন্টাইন (ballentine)
শুক্রবার- সিভাস রিগাল (chevas regal)
শনিবার- ব্ল্যাক লেভেল (black level)
মঙ্গলবার তার সপ্তাহিক মদ্যপান বিরতি, এদিন সে মদ খায় না। তবে সুলতান নিজে মদ খেলেও তার বাচ্চাদের রাখা হয় মদ থেকে বঞ্চিত৷ কে জানে, বড় হলে হয়ত তারাও মদ খাওয়ার অনুমতি পাবে!সুলতান ষাঁড়টির মালিক নরেশ কুমার। তার হিসাবে সুলতানের ওজন ১৭০০ কেজি, উচ্চতা পাঁচ ফুট এগারো ইঞ্চি! নরেশ কুমার বলেন, সুলতানের মূল্য ৩০ লাখ ডলারের চেয়েও বেশি। যদিও তিনি সুলতানকে বিক্রি করতে চান না। দক্ষিণ আফ্রিকার এক খামারি সুলতানের জন্যে ২১ কোটি টাকা প্রস্তাব করেছিলো, নরেশ সে প্রস্তাব প্রত্যাখান করেছেন। মাত্র দুই লাখ চল্লিশ হাজার টাকা সুলতান তাকে মিলিয়ন টা কা যোগান দিচ্ছে, এই সুলতানকে তিনি ছাড়তে চাইবেন কেনো!

বিশালদেহী এই ষাঁড়ের স্পার্মের চাহিদা মারাত্মক।  প্রায় প্রতিটি রাজ্যেই বিক্রি হয়েছে প্রতিটি সিমেন ৩০০ টাকা করে। শুধু সিমেন বিক্রি করেই প্রতি বছর নরেশের আয় ১০ মিলিয়ন টাকাও বেশি!এছাড়া সুলতান বিভিন্ন এওয়ার্ডও জিতেছে। পশুদের প্রতিযোগিতায় সাতবার সে প্রথম হয়েছে। জিতবেই না কেনো! প্রতিদিন সকালে সে নিয়ম করে পাঁচ কিলোমিটার হাঁটে। তার জন্য করা হয়েছে স্পেশাল খাদ্য তালিকা। তার উপর প্রতিদিন সন্ধ্যায় যে হুইস্কি পান করে, তাকে হারাবে কোন গরু?
সাত বছর বয়সী মুররাহ-ব্রীড প্রজাতির এই ষাঁড়টি ইতিমধ্যে হরিয়ানা রাজ্য  কৃষিবিদ ও খামারিদের কাছে আলোচিত এক বিষয়। প্রতিদিন অনেকে দর্শনার্থী সুলতানকে দেখতে ভিড় জমায়। সবচেয়ে আমোদ যোগায় সুলতানের হুইস্কি পান। এ দৃশ্য হরিয়ানার দর্শনার্থীদের কাছে নতুন। দিন দিন তাই সুলতানের কদর বাড়ছে, ষাঁড় হিসেবে তাকে সফলই বলা যায়! সুলতানও যেন খুশি, স্বাস্থ্য দেখলেই বোঝা যায় সেটা। আর খুশি হবেই না কেন? প্রতিদিন হুইস্কি খেয়ে ‘চিল’ করার কপাল কয়টা ষাঁড় পায়!
Loading...

No comments

Powered by Blogger.