ছট পুজো উপলক্ষে নদীর দু ধারে ঘাট পরিস্কার করার কাজ শুরু




 রেখা জয়সয়াল,উঃদিনাজপুর:   পুজোর রেশ যেন সাধারণ মানুষের পিছুই ছাড়ে না।একটার পর একটা পূজো লেগেই থাকে তাতে করে মেতে উঠে সাধারণ মানুষ । এবারে কালী পুজোর রেশ কাটতে না কাটতেই এবারে হিন্দী ভাষী মানুষদের ছট পুজোর পালা।ছট পূজা মানে ষষ্টি ও সূর্যের এক সাথে আরাধনা যাকে বলা হয় ছট্টী মাইয়া।কালী পুজার আমাবস্যার পরে ষষ্টি পুজো করে হিন্দী ভাষী মানুষেরা।কিন্তু  এখন এই পূজায় হিন্দী ভাষী মানুষদের সাথে তাল মিয়ে সব জাতীর মানুষ পূজা করে থাকে নিষ্ঠা ও ভক্তি সহ কারে। তাই সারা দেশের সঙ্গে উত্তর দিনাজপুর জেলার বহু মানুষ সামিল হবেন এই ছট পুজোয়। তাই শুরু হয়ে গিয়েছে পুজোর প্রস্তুতি পর্ব।

জেলার রায়গঞ্জ, কালিয়াঞ্জের,ইসলামপুর,ডালখোলা বিভিন্ন নদী ঘাটে গিয়ে দেখা গেল নদীর দু ধারে ঘাট পরিস্কার করার কাজ চলছে। বাঁশ দিয়ে পুজোর জন্য প্রয়োজনীয় জায়গা ঘেরাও করে নিচ্ছেন পুজো উদ্যোক্তারা। পুজো আয়োজকদের বক্তব্য আগে থেকে জায়গা দখল না করলে পরে শেষ মুহুর্তে ঘাটে জায়গা পাওয়া যায় না। ফলে এখন থেকে ঘাটে জায়গা দখল করে নেওয়া হচ্ছে। রায়গঞ্জের কুলীক নদীর খোরমুজাঘাট, কালিয়াগঞ্জের শ্রীমতি নদী সহ বেশ কিছু পুকুরে ঘাটে ছট পুজোর সময় সাধারন মানুষের ভিড় উপচে পড়ে। তাই পুজো উপলক্ষে নতুন করে সেজে উঠছে ঘাট চত্বর।  শনিবার বিকেলে অস্তমিত সূর্য্যকে সাক্ষী রেখে শুরু হয়ে যাবে ছট পুজো এবং রবিবার  সকালে সূর্য উদয়ের সাথে শেষ হবে ছট পূজা । দূর্গাপুজো, কালীপুজো শেষ হয়ে যাওয়ার পর মানুষের মনে যখন জমাট বেধে রয়েছে বিষন্নতা তখন হেমন্তের শীতল বাতাসের মতই ফের উৎসবের আবহে গাঁ ভাসিয়ে দেবে আপামোর মানুষ।তাই এখন জোর কদমে চলছে ঘাট প্রস্তুতির কাজ।


Loading...

No comments

Powered by Blogger.