ইংরেজবাজার ব্যায়াম সমিতির কালীর বিশেষ বৈশিষ্ঠ্য মায়ের দশটি মাথা



মালদা : মালদা শহরের ইংরেজবাজার ব্যায়াম সমিতির কালীপুজো ৮৯ তম বর্ষে পদার্পন করলো।ইংরেজ তাড়াতে শুরু হওয়া এই পুজো শহরের গঙ্গাবাগ এলাকায় আজও একই রীতি ভক্তি নিষ্ঠার সহিত মহাকালী পুজো করছে ইংরেজবাজার ব্যায়াম সমিতির কর্মকর্তারা।এই পুজোর বিশেষ আকর্ষণ মায়ের শ্যামা রূপের দশটি মাথা,দশটি হাত,দশটি পা।

পুজো কমিটির সূত্রে জানাযায়, এই পুজো ভারতবর্ষ স্বাধীনতার আগে ১৯৩০ সালে গঙ্গাবাগ এলাকার যুবকেরা পুজো আরম্ভ করে।তৎকালীন ব্রিটিশ শাসনে ছিল ভারতবর্ষ।ভারতবর্ষকে ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত এবং তাদের সঙ্গে লড়াইয়ের উদ্দেশ্য নিয়ে যুবকেরা শহরের পুরাটুলী এলাকায় একটি ব্যায়ামাগার স্থাপন করেন।যা বর্তমানে গঙ্গাবাগ এলাকায় ইংরেজবাজার ব্যায়াম সমিতির রূপ নিয়েছে।তৎকালীন ব্যায়ামাগার নিয়মিত শরীরচর্চা করা হতো।বিশেষ করে লাঠিখেলা,কুস্তি প্রশিক্ষণ করতো যুবকেরা।তখন যুবকেরা শক্তির আরোধনাই মা কালীর পুজো আরম্ভ করে।চতুর্দশী তিথিতে আজও পুরোনো শাস্ত্র মতে এই পুজো হয়ে আসছে।তৎকালীন শরৎ পন্ডিত নামের এক যুবক এই পুজোর উদ্যোগ নিয়েছিলেন বলে জানাযায়।তারপরই চতুর্দশীর দুপুরে শুরু হয় দশ মাথার মহাকালী পুজো।

অমাবস্যা রাতে নয়, চতুর্দশীর দুপুর থেকে শুরু হয় পুজো।এদিন  মহাকালীর প্রতিমা শহরের দুর্গাবাড়ি মোর থেকে উল্লাসের সহিত গঙ্গাবাগ এলাকায় অবস্থিত মায়ের মণ্ডপে আনায়ন করা হয়। মহাকালীর কাছে নেই কোনো শিব। দেবীর পায়ের নিচে অসুরের কাটা মুন্ডু। শ্রী শ্রী চন্ডী গ্ৰন্থে এই মহাকালীর উল্লেখ রয়েছে বলে জানাযায়। তান্ত্রিক মতে চতুদশীতে হয় পূজা। দুর দুরান্ত থেকে পুজো দিতে আসেন ভক্তরা।পুজো উপলক্ষে চার দিন ধরে চলে নানা ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।মায়ের মূর্তি মন্দিরে আনয়ন প্রতিবছর থাকে জাকজমক।এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। ঢোল সাণাই ঢাক নানান নৃত্য শোভাযাত্রা করে উল্লাসে মাধ্যমে মায়ের প্রতিমা আনা হয় মণ্ডপে।

এই পুজো প্রসঙ্গে ইংরেজবাজার ব্যায়াম সমিতির সম্পাদক বপন চৌধুরী জানান,"শক্তির আরোধনাই এই পুজোর সৃষ্টি।মা চন্ডীর এক বিশেষ রূপ দশটি হাত,দশটি মাথা,দশটি পা বিশিষ্ট মায়ের পুজো হয় এই মণ্ডপে।চতুর্দশীর দুপুর থেকেই মায়ের পুজো আরম্ভ হয়ে যায়।পাঠা বলিও হয়।ভক্তদের ভিড় চোখে পড়ার মতো থাকে।মায়ের প্রতি এলাকার মানুষের দৃঢ় বিশ্বাস রয়েছে।হিন্দু মুসলিম বলে কিছু নেই,এখানে সকলে মিলে সম্প্রীতির পুজো করি"।


Loading...

No comments

Powered by Blogger.