তৃণমূল বিজেপি সংঘর্ষে বোমাবাজি:উত্তেজনা




দলিয় পতাকা ফেলে দেওয়াকে কেন্দ্র করে তৃণমূল বনাম  বিজেপির চরম উত্তেজনার পারদ চরলো খানাকুল তাঁতিশাল অঞ্চলের মাঝপুর গ্রামে।গতকাল রাতে ঘটনাটি ঘটলেও এলাক থমথমে।বসানো হয়েছে পুলিশ পিকেট ।চলছে পুলিশি টহলদারি ।
  তৃণমূলের বিরুদ্ধে ব্যাপক বোমাবাজির অভিযোগ তুলেছে  বিজেপির পক্ষ থেকে ।যদিও বোমাবাজির ঘটনা অস্বীকার করে তৃনমূল,। পাল্টা অভিযোগ  বিজেপির সমর্থকেরাই নাকি এলকায় উত্তেজনা করছে।যদিও এমন চলতে থাকা পরিস্থিতিতে পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রীয়তাকে দায়ি করেছে।জানা গেছে উদনা ও বালিপুর মাঝপুর গ্রাম গুলি তাঁতিশাল অঞ্চলের মধ্যে পরে, মাঝপুর গ্রামে রবিবার রাতে কে বা করা একদল দূষ্কৃতি এসে বিজেপির দলিয় পতাকা খুলে দেওয়া সহ ।চলে বোমাবাজী ঘটনা।বিজেপি সমর্থকদের অভিযোগ সমস্থ ঘটনা তৃণমূল নেতা সেখ সাকিম ও লাল বাবুর লোকজন এমন তান্ডব  ঘটাচ্ছে।এ বিষয়ে যুব তৃনমূল নেতা সামিক বলেন" আসলে আমাদের কর্মীদের জোর করে বিজেপিতে ঢোকাতা চাইছে,বিভিন্ন সময়ে লাগাতার হুমকি ও বিজেপি বোমাবাজীর রাজনীতি শুরু করছে শান্ত তাঁতিশাল অঞ্চলে অতিষ্ট এলাকাবাসী।ওই এলাকায় সকালেও উত্তেজনার পারদ চরে।গ্রামের দুই প্রান্তে উভয় দলের কর্মী সমর্থকেরা জমায়েত হতে দেখা যায়।বেশ কয়েকটা বাড়িতে তান্ডব চলে বলে খবর। এলাকায় খানাকুল থানা পুলিশ আসে।মাঝপুর এলাকায় বিজেপি নেতা  সারাফত খান,হারাধন খান বলেন" আর তো হাতে গোনা কটা লোক তৃনমূল করছে, সাধারন মানুষদের তৃণমূলের লোকজন অতিষ্ট করে তুলছে।বিজেপির তরফে দাবি তৃনমূলের অত্যাচারে  ৬/৭ জন বিজেপি কর্মী ওই মাঝপুর গ্রাম ছেরে পাশের এলাকায় আছেন।এমন পরিস্থিতিতে ওই এলাকা অতিষ্ট। সাধারন মানুষ বলছেন"সামনে ২১ শে ভোট সেজন্যই উভয় দলই এমন কান্ড করে এগোতে চাইছে,এলাকায় অশান্তি করলে সাধারন মানুষ মেনে নেবে না।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.