বৃক্ষনিধণ রূখতে মানুষকে সচেতন করার লক্ষে গাছের ভাই ফোঁটা

 

“উন্নয়নের কারণে কাটা যাবে না একটিও গাছ – ট্র্যান্সপ্লান্ট করতে হবে অর্থাৎ গাছ তুলে অন্য জায়গায় বসাতে হবে – এট আসম্ভব ও আবশ্যক”। এই আওয়াজ তুলেই সোমবার হাওড়ার তেলকল ঘাটে গাছ ফোঁটার আয়োজন করলেন পরিবেশবিদ সুভাষ দত্ত।

সারা বিশ্বে এই মুহূর্তে সবচেয়ে বড়ো সমস্যা “গ্লোবাল ওয়ার্মিং”। ক্রমাগত বেড়ে চলেছে পৃথিবীর উষ্ণতা। যা প্রতিরোধ করতে পারে একমাত্র গাছ। এই প্রসঙ্গে হাওড়ার পরিবেশবিদ সুভাষ দত্ত বলেন  “গাছের প্রাণ আছে। বিভিন্নভাবে গাছ আমাদের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে  উপকার করে। নিঃশব্দে এমনভাবে উপকার গাছ ছাড়া অন্য কেউ করেনা। সেইজন্য গাছ আমাদের পরম বন্ধু। কিন্তু বর্তমান সমাজে উন্নয়নের নামে নির্বিচারে কাটা হচ্ছে গাছ। ধ্বংস করা হচ্ছে বনভূমি। নির্বিচারে বনভূমি ধ্বংস করার কারনে শেষ হতে বসেছে গাছ। এতে ক্ষতি হচ্ছে পরিবেশের। নষ্ট হচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য। তাই চিপকো আন্দোলনের ধাঁচে আজ আমাদের প্রকৃতি বরণ”। মানুষকে সচেতন করতে এবং প্রকৃতির সাথে মানুষের মেলবন্ধন ঘটাতেই গাছ ফোঁটার আয়োজন বলে জানালেন তিনি। 

এদিন দুপুরে হাওড়ার গঙ্গা নদীর তীরে তেলকলঘাটে একটি প্রাচীন বটগাছকে ভাই ফোঁটা দিলেন বোনেরা। “গাছ ভাইয়ের কপালে দিলাম ফোঁটা, যমের দুয়ারে পড়ল কাঁটা” এই মন্ত্র উচ্চারণ করে চন্দনের ফোঁটা দেওয়া হয়। গাছ ভাইয়ের কপালে চন্দনের ফোঁটা দেওয়ার পরে ভাইকে মিস্টিমূখও করানো হয়। 
Loading...

No comments

Powered by Blogger.