যেসব দেশে নেই সেনাবাহিনী



বিশ্বে এমন কিছু দেশ আছে যাদের কোনো সেনাবাহিনী নেই ৷ সেনাবাহিনী ছাড়ায় বেশ ভালোভাবেই চলছে তাদের দেশগুলো। তেমন কয়েকটি দেশ সম্পর্কে চলুন জেনে নিই।
কোস্টারিকা
মধ্য অ্যামেরিকার দেশ কোস্টারিকায় ১৯৪৮ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে খুব কারচুপি হয়েছিল৷ নির্বাচন না মেনে বিদ্রোহিরা ক্ষমতা দখল করে নেয়৷ তারপর সেনাবাহিনী বিলুপ্ত ঘোষণা করে তারা৷ ১৯৫৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত মোট ১৪টি প্রেসিডেন্ট নির্বাচন হয়েছে দেশটিতে৷ সবগুলোই হয়েছে শান্তিপূর্ণ ৷
লিস্টেনস্টাইন
মধ্য ইউরোপের দেশ লিস্টেনস্টাইনে সেনাবাহিনী নেই ১৮৬৮ সাল থেকে৷ দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ হয়ে যাওয়ায় সেনাবাহিনীর পেছনে আর ব্যয় না করার সিদ্ধান্ত থেকেই তা বিলুপ্ত করা হয়েছিল ৷
সামোয়া
নিউজিল্যান্ড থেকে ১৯৬২ সালে আলাদা হয়ে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে যাত্রা শুরু করে সামোয়া৷ তখন থেকেই তাদের সেনাবাহিনী নেই৷ নিউজিল্যান্ড বলেছিল, যেকোনো বিপদে পাশে দাঁড়াবে৷ সেই ভরসায় আর সেনাবাহিনী গড়েনি দেশটি ৷
অ্যান্ডোরা
ইউরোপের দেশ অ্যান্ডোরা স্বাধীন ভূখণ্ড হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে ১২৭৮ সালে৷ স্পেন আর ফ্রান্স আশ্বাস দিয়েছে, অ্যান্ডোরার নিরাপত্তা বিঘ্নিত হলে এগিয়ে আসবে৷ বন্ধুরাষ্ট্রের আশ্বাসের কারণে সেনাবাহিনী গড়েনি দেশটি ।
টুভালু, ভ্যাটিকান সিটি, গ্রানাডা
টুভালুর ক্ষেত্রফল মাত্র ২৬ বর্গ কিলোমিটার৷ এখনো সেনাবাহিনীর দরকার মনে করেনি দেশটির সরকার৷ ইতালির রাজধানী রোমের ভেতরে হলেও ভ্যাটিকান স্বাধীন ভূখণ্ড৷ ক্ষেত্রফল মাত্র শূন্য দশমিক ৪৪ বর্গ কিলোমিটার৷ ভ্যাটিকানেরও কোনো সেনাবাহিনী নেই৷ এছাড়া ৩৬ বছর হলো গ্রানাডার নিয়মিত কোনো সেনাবাহিনী নেই৷ একটি বড় এবং ছয়টি ছোট দ্বীপ নিয়ে গড়া এই দেশটির ক্ষেত্রফল ৩৪৪ বর্গকিলোমিটার ৷
নাউরু
প্রশান্ত মহাসাগরের দ্বীপদেশ নাউরুর নিরাপত্তার দায়িত্ব সত্যি সত্যিই নিয়ে রেখেছে অস্ট্রেলিয়া৷ ২১ দশমিক ১০ বর্গকিলোমিটার ক্ষেত্রফল এবং ১০ হাজার অধিবাসীর এই দেশটিতেও তাই সেনাবাহিনী নেই ৷
Loading...

No comments

Powered by Blogger.