এক স্কুল এক ছাত্র এক শিক্ষক!


রাশিয়ার সাইবেরিয়া অঞ্চলের প্রত্যন্ত গ্রাম সিবিলিয়াকভো। সেখানকার প্রাথমিক স্কুলে একজন শিক্ষক তার একমাত্র ছাত্রকে পড়ান। সোভিয়েত আমলে সরকার পরিচালিত খামার থাকায় এ গ্রামে অনেক লোকের বাস ছিল।এরপর সোভিয়েত ইউনিয়ন ভেঙে যাওয়ায় লোকজন গ্রাম ছেড়ে শহরে যাওয়া শুরু করে। ফলে আগে যেখানে গ্রামের লোকসংখ্যা ছিল প্রায় সাড়ে পাঁচশ, এখন সেটা এসে দাঁড়িয়েছে ৩৯ জনে।
* অবসর নিতে পারছেন না : শিক্ষক উমিনুর কুচুকোভার অবসরের বয়স হয়েছে আগেই। কিন্তু রাভিলের কারণে সেটা সম্ভব হয়নি। রাভিলের কৃষক বাবা-মা এই মুহূর্তে গ্রাম ছেড়ে যেতে চান না। আর বয়স কম হওয়ায় রাভিলের পক্ষে দূরের স্কুলে যাওয়াও সম্ভব নয়। ছবিতে রাভিল ও তার বড় বোনকে দেখা যাচ্ছে।
* স্কুলের প্রথম দিন : ২ সেপ্টেম্বর স্কুলের প্রথম দিন ছিল। ছবিতে ৬১ বছর বয়সী শিক্ষক উমিনুর কুচুকোভা ও তার ৯ বছর বয়সী একমাত্র ছাত্র রাভিল ইঝমুখামেতোভকে দেখা যাচ্ছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শহীদদের প্রতি সম্মান জানাচ্ছেন তারা। এক সময়ের মুখরিত স্কুলে এখন কোলাহল নেই শিক্ষার্থীদের।
* তবে আগামী বছর : রাভিলের বয়স এখন ৯। আগামী বছর থেকে সে দূরের স্কুলে যেতে পারবে। তখনই কুচুকোভা অবসর নেবেন, আর সেই সঙ্গে স্কুলটিও বন্ধ হয়ে যাবে। প্রায় ৪২ বছর কাজ করেছেন যে স্কুলে সেটি বন্ধ হয়ে যাবে, ভাবতেই খারাপ লাগে তার। ছবিতে রাভিলকে দাদির সঙ্গে দেখা যাচ্ছে।
* একমাত্র ছাত্র : স্কুলের প্রথম দিনের ক্লাসে রাভিল। পেছনে তার পরিবারের সদস্যদের দেখা যাচ্ছে। একসময় যেখানে গ্রামের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চার শ্রেণির প্রতিটিতে প্রায় ১৮ জন করে শিক্ষার্থী থাকত, এখন সেটা মাত্র একজনে এসে দাঁড়িয়েছে। আগামী বছর স্কুলটি বন্ধ হয়ে যাবে।
* স্কুলের পথ : আগামী বছর রাভিলকে স্কুলে যেতে প্রথমে নৌকা করে আধঘণ্টা পথ পাড়ি দিতে হবে। তারপর স্কুলবাসে করে যেতে হবে ২০ মিনিট। সহপাঠীদের সঙ্গে ক্লাস করতে কেমন লাগে তা জানা নেই তার। তবে ভবিষ্যতে সে কারও বন্ধু হতে আগ্রহী। ছবিতে বাবার সঙ্গে রাভিল।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.