জেনে নিনি দ্বিতীয় নিকোলাস সম্পর্কে



রাশিয়ার জার সাম্রাজ্যের কথা উঠলেই যার নাম সবার আগে উচ্চারিত হয়, তিনি হলেন দ্বিতীয় নিকোলাস। মূলত এই নিকোলাসের মাধ্যমেই দীর্ঘ জার সাম্রাজ্যের সমাপ্তি ঘটে। তার জন্ম ১৮৬৮ সালের ১৮ মে। তিনিই রাশিয়ার শেষ সম্রাট। ফিনল্যান্ডের গ্রান্ড ডিউক এবং পোল্যান্ডের সম্মানসূচক রাজাও ছিলেন। তিনি ১৮৯৪ সাল থেকে শুরু করে ১৯১৭ সালে অসুস্থ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত দেশ শাসন করেন। তার শাসনামলে রাশিয়া পৃথিবীর সুপার পাওয়ারে পরিণত হয়। তবে তার শত্রুরা তাকে 'ব্লাডি নিকোলাস' বলে ডাকত। কারণ বিরুদ্ধাচরণকারী রাজনীতিবিদদের নির্বিচারে ফাঁসি প্রদান করতেন নিকোলাস। নির্বিচারে গণহত্যা করেছেন রাশিয়ার এই সম্রাট। এ ছাড়া তিনি রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড এবং নিজের স্বার্থসিদ্ধিতে মিলিটারি ক্যাম্পেইন করতেন। তবে নিজ দেশের স্বাধীনতার জন্য বরাবরই আপসহীন ছিলেন নিকোলাস। এ বিষয়ে কাউকে তিনি ছাড় দেননি। তার নেতৃত্ব জাপানের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়লাভ করে রাশিয়া। রাজ্যের শীর্ষ কর্তাব্যক্তি হওয়ায় তার অনুমতিতেই রাশিয়া ১৯১৪ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। যে যুদ্ধে প্রায় ৩০ লাখ রাশিয়ান আত্দাহুতি দেয়। সে সময় জনরোষের কবলে পড়েন এই সম্রাট। শেষ পর্যন্ত সৈন্যরাও জনগণের সঙ্গে বিদ্রোহে যোগ দেয়। সংঘটিত হয় ১৯১৭ সালের ফেব্রুয়ারির বিপ্লব। ভেঙে দেওয়া দুমার সদস্যরা সৈন্য এবং সাধারণ মানুষের সঙ্গে মিলে গঠন করেন প্রভিশনাল সরকার। আর এই সরকারই শেষ পর্যন্ত কাল হয়ে দাঁড়ায় নিকোলাসের জীবনে।

শেষ পর্যন্ত ১৯১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে গণঅভ্যুত্থানের মুখে তিনি এবং তার পরিবার আলেকজান্ডার প্যালেসে বন্দী হন। ১৯১৮ সালে নিকোলাসকে স্থানীয় সোভিয়েতদের হাতে তুলে দেন তৎকালীন কমিশনার ভ্যাসিলি ইয়াকোভলেভ। ১৯১৮ সালের ১৬ অথবা ১৭ জুলাই স্ত্রী আলেকজান্দ্রা, ছেলে অ্যালেঙ্ নিকোলাইভিচ, চার কন্যা, পারিবারিক চিকিৎসক, রাঁধুনিসহ নিকোলাসকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করে বলশেভিকরা।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.