মুসোলিনি সম্পর্কে কিছু তথ্য



বেনিতো মুসোলিনি। ইতালির অন্যতম একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারী ছিলেন এই শাসক। ১৯২২ থেকে ১৯৪৩ সাল পর্যন্ত শক্ত হাতে ক্ষমতা অাঁকড়ে ছিলেন তিনি। দাপিয়ে বেড়িয়েছেন গোটা ইতালি। তবে তাকে বলা হয় ফ্যাসিবাদের জনক। পুরো নাম বেনিতো এমিলকেয়ার আন্দ্রে মুসোলিনি। তিনি ছিলেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে ইতালির সর্বাধিনায়ক। তার নেতৃত্বেই ইতালির সেনাবাহিনী এই যুদ্ধে ভূমিকা রাখে। মুসোলিনির জন্ম ইতালির ফোরলি শহরের একটি কামার পরিবারে। জীবনের শুরুর দিকে সৈনিক, সোশ্যালিস্ট এমনকি স্থানীয় পত্রিকা সম্পাদনার কাজের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন তিনি। ছোট বেলা থেকেই চঞ্চল ও ডানপিটে স্বভাবের ছিলেন। কিন্তু তার প্রথম পছন্দ ছিল রাজনীতি। ইচ্ছা ছিল একটাই_ দেশের সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী হওয়া। আর এই স্বপ্ন খুব সহজেই ধরা দেয় তার কাছে। যদিও অনেক চড়াই-উৎরাই পেরিয়ে উচ্চাভিলাষী মুসোলিনি ১৯২২ সালে ন্যাশনাল ফ্যাসিস্ট পার্টি থেকে নির্বাচন করে ইতালির ৪০তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে অধিষ্ঠিত হন। তার বিশাল প্রশাসনিক ভবনের ওপর তিনি স্থাপন করেছিলেন নিজের অতিকায় মুখাকৃতি। এক কথায় তার দাপটে তটস্থ থাকতেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা। এর মধ্যেই দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়। হিটলারের সঙ্গে বন্ধুত্ব করেন তিনি। মুসোলিনি ১৯৪০ সালে অক্ষশক্তির পক্ষে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যোগদান করেন। ১৯৪৩ সালে সিসিলিতে ক্ষমতাচ্যুত হলে তাকে বন্দী করা হয়। ওই বছরের সেপ্টেম্বরে জার্মান সেনাদের কারসাজিতে মুক্তি পান মুসোলিনি। কিন্তু ১৯৪৫ সালের ২৭ এপ্রিল সুইজারল্যান্ডে পালানোর সময় ইতালির একটি ছোট্ট গ্রামে কমিউনিস্ট প্রতিরোধ বাহিনীর হাতে ধরা পড়েন তিনি। এর পর দিন ১৫ সহযোগীসহ তাকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এরই সঙ্গে পতন ঘটে ইতালির এই একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারীর।
Loading...

No comments

Powered by Blogger.