"সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে যারা ভারতীয় সেনাবাহিনীর মনোবল কে ছোট করছে তাদের দেশবাসী কখনোই ক্ষমা করবে না":কৈলাস বিজয়বর্গীয়





রাজা সেখ,নদীয়া:সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে যারা ভারতীয় সেনাবাহিনীর মনোবল কে ছোট করছে তাদের দেশবাসী কখনোই ক্ষমা করবে না। মঙ্গলবার  নবদ্বীপে সারা বাংলা কীর্তন বাউল ও ভক্তিগীতি ট্রাস্ট বা শিল্পী সংসদের একটি অনুষ্ঠানে যোগ দিতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে একথা বলেন, বিজেপি সর্বভারতীয় নেতা তথা বাংলার পর্যবেক্ষক কৈলাস বিজয়বর্গিও। তিনি আরও বলেন, যারা একথা বলছেন তারা আর যাই হোক দেশভক্তির কথা বলছেন না। এবিষয়ে তার পরামর্শ অন্তত সেনাবাহিনীর মুখের কথা বিশ্বাস করুন। আর তাও যদি না হয় পাকিস্থানের রাষ্ট্রপতি কি বলছেন। সেটাও কি বিশ্বাসযোগ্য নয় ? কৈলাসের পরামর্শ, সেনাবাহিনীর মনোবল কে বাড়াতে না পাড়ুন, অন্তত ছোট করবেন না। সেনাদের বীরত্ব কে ছোট করতে রাজনীতি করবেন না। রাজনীতি করার প্রচুর সময় পাবেন। কৈলাস কটাক্ষের সুরে বলেন, এধরণের কথা যারা বলেন তারা ভোটের সওদাগর। তারা ভাবছেন এতে মোদির লাভ।  দেশের সমস্ত মানুষের রায় মোদির পক্ষে চলে যাবে। আমরা কখনোই সেনাবাহিনীর কৃতিত্ব কে ছোট করে দেখিনি। আমরা সেনাবাহিনীর জন্য গর্বিত। তারা দেশের মান কে বিশ্বের মানচিত্রে সর্বোচ্চ পর্যায়ে নিয়ে গেছে। সেবাহিনীর জন্য সারাদেশ আজ গর্বিত। তাদের বীরত্ব কে কুর্নিশ জানাতেই হবে। দেশের সীমানা পার করে যেভাবে পড়শী দেশের ভিতরে ঢুকে উগ্রপন্থীদের ঘাঁটি গুঁড়িয়ে এসেছে তাতে তাদের বীরত্ব এতটুকুও কম নয়। সেনাদের নিয়ে যারা ঘৃণ্য রাজনীতি করছে তাদের দেশবাসী কখনোই ক্ষমা করবে না। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কৈলাস বিজয়বর্গিও শিল্পীদের উদ্দেশ্যে বলেন, কেন্দ্রীয় সরকার এবছরের বাজেটে ৬০ বছর উত্তীর্ন যেসব শিল্পীদের তিন হাজার টাকার পেনশন ঘোষণা করেছেন। কৈলাসের একথায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত কয়েক হাজার মহিলা ও পুরুষ শিল্পী করতালি দিয়ে কৈলাসজীকে স্বাগত জানান। প্রধান অথিতি কৈলাস বিজয়বর্গিও উপস্থিত সমস্ত শিল্পীদের ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, দেশের জন্য যে বীর সৈনিকরা শহীদ হলেন, তাদের আত্মার শান্তি কামনা ও শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করতে শিল্পীদের এই অনুষ্ঠান নিঃসন্দেহে ব্যাতিক্রমী। শহীদ জওয়ানদের জন্য ব্যাথিত শিল্পীরাও। তাই তারা নবদ্বীপের মতো চৈতন্যের জন্মভূমি কে বেছে নিয়েছে। এদিন শিল্পী সংসদের পক্ষ থেকে শহীদ জওয়ানদের শ্রদ্ধা জানাতে নবদ্বীপের গৌরগঙ্গা কে বেছে নেওয়া হয়। সকালে শহীদ বীর জওয়ানদের আত্মা শান্তি ও শ্রদ্ধা জসনাতে মনিপুর ঘাটে গঙ্গায় তর্পণ ও প্রদীপ ভাসানো হয়। পাশাপাশি বীর শহীদ জওয়ানদের শ্রদ্ধা অনুষ্ঠানে শিল্পী সংসদের পক্ষ থেকে দুস্থ শিল্পীদের মৃদঙ্গ , ঢাক, খঞ্জনি সহ অন্যান্য বাদ্যযন্ত্র বিতরণ করা হয়। এদিনের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে সারা বাংলা থেকে কয়েক হাজার কীর্তন শিল্পী থেকে শুরু করে বাউল ও ভক্তিগীতি শিল্পীরাও উপস্থিত হয়েছিলেন।
Bengali Movie Air Hostess

Loading...

No comments

Powered by Blogger.