কংগ্রেস জোট সমঝোতা নিয়ে রাজনৈতিক পরিকল্পনা


অর্ক রায়, মালদা : মালদায় নির্বাচনী সভা পিছালো সর্বভারতীয় কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধীর।  ১৫ মার্চের বদলে সেই সভা অনুষ্ঠিত হবে ২৩ মার্চ । রাহুল গান্ধীর এই সভা হওয়া নিয়ে প্রথম থেকেই নানা বিতর্ক তৈরি হয়ে আসছে।  প্রথমে সভার জায়গা ঠিক করা নিয়ে দলের মধ্যেই তৈরি হয়েছে নানা বিতর্ক।  তারপরে প্রশাসনের অনুমতি পাওয়া নিয়েও তৈরি হয়েছিল জটিলতা । অবশেষে রাহুল গান্ধীর সভার অনুমতি  প্রশাসনের তরফ থেকে মিললেও তার দিনক্ষণের পরিবর্তন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব।

শনিবার মালদায় রাহুল গান্ধীর সভা প্রসঙ্গে বৈঠক করতে আসেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র । তার সঙ্গে ছিলেন কংগ্রেস নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য। এদিন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রের উপস্থিতিতে লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে জেলার  কংগ্রেস নেতৃত্বের সঙ্গে একটি বৈঠক হয়।

মালদা শহরের বেসরকারি একটি হোটেলে সাংবাদিক বৈঠক করে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সৌমিত্র মিত্র বলেন রায়গঞ্জ মুর্শিদাবাদে ওরা প্রার্থী দিয়েছে পুরো বিষয়টি হাই কমান্ড কি জানানো হয়েছে।

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সৌমিত্র বলেন,  ১৫ মার্চ উত্তর মালদায় রাহুল গান্ধীর সভা হওয়ার কথা ছিল । কিন্তু হেলিকপ্টার ওঠানামার ক্ষেত্রে সময়ের একটা সমস্যা তৈরি হয়েছে । সেই কারণেই ওই দিনের সভা পিছিয়ে ২৩ মার্চ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও ১৫ মার্চ শুক্রবার  জুম্মাবার হওয়ায় একটি সম্প্রদায়ের বহু মানুষ নামাজ পাটে ব্যস্ত থাকবেন। সেই কারণে রাহুল গান্ধীর
সভায় বহু মানুষই উপস্থিত হতে পারবেন না । যদি ওইদিন সভাটি  নির্দিষ্ট সময়ের একটু পরে শুরু করা যায়।  তাহলে বিকাল গড়িয়ে যাবে। যার ফলে হেলিকপ্টার উঠানামাতে সমস্যা তৈরি হবে । তাই ১৫ মার্চের বদলে ২৩ মার্চ দুপুর তিনটায় মালদায় রাহুল গান্ধীর জনসভার আয়োজন করা হয়েছে । তবে চাচোল ১ ব্লকের  কলমবাগান এলাকাতেই রাহুল গান্ধীর সভার কথা প্রদেশ নেতৃত্ব জানিয়েছেন। 

এদিকে জোট প্রসঙ্গে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সৌমেন মিত্র বলেন,  বিগত দিনে আসন সমঝোতা হয়েছিল  । আমরা জোটের বিপক্ষে নয়। কিন্তু এরই মধ্যে রায়গঞ্জ , মুর্শিদাবাদের ওরা প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছে । পুরো বিষয়টি হাইকমান্ডকে জানিয়েছি। পর্দার আড়ালে কোন কিছুই করব না।  জনগণের স্বার্থের কথা ভেবেই এই জোট । যা হবে সামনা সামনি । যদি না হয় তাহলে নির্বাচনে যেমন লড়াই হয় তেমনি হবে । আর এই জোট শুধু লোকসভার জন্য নয়।  ২০২১-এর বিধানসভা পর্যন্ত এই জোট আমরা করতে চাই।  জোট নিয়ে আলোচনা করার জন্য প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব দলের ভারপ্রাপ্ত দুই নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য্য , শংকর মালাকারকে আলোচনার জন্য দায়িত্ব দিয়েছেন।  তারা রাহুল গান্ধীর সঙ্গে কথা বলেছেন।  সম্পূর্ণ বিষয়টি এখন হাইকমান্ডের হাতে রয়েছে।  শাসক দল তৃণমূল এবং  বিজেপিকে পরাস্ত করতে জোটের প্রয়োজনীয়তা আছে।

এদিন প্রদেশ কংগ্রেস নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য বলেন , জোটের মাধ্যমে আসন সমঝোতায়  কোন সমস্যা নেই। তবে ওরা যদি জোটের পক্ষে না যায় । তাহলে নির্বাচনে স্বাভাবিক লড়াই হবে । রাজ্যের জোটের পরিস্থিতির কথা হাইকমান্ডকে জানানো হয়েছে।   তাদের নির্দেশের অপেক্ষায় রয়েছি । তবে এরাজ্যে বিজেপি এবং শাসক দল তৃনমূলকে পরাস্ত করতে কংগ্রেস বদ্ধপরিকর । বিগত দিনে আসন সমঝোতা হয়েছিল সিপিএমের সাথে।  কিন্তু এবার জোট নিয়ে এখনো পরিষ্কারভাবে কোনো কথা হয় নি । সম্পূর্ণ বিষয়টি হাইকমান্ড দেখছে।
Bengali Movie Air Hostess

Loading...

No comments

Powered by Blogger.