বিধায়ক খুনে মুকুল রায়ের নাম জড়ানো নিয়ে কি বললেন দিলীপ ঘোষ?


রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে আবার আক্রমনাত্মক রাজ্যের বি জে পি সভাপতি দীলিপ ঘোষ। এদিন দীলিপবাবু বারুইপুরে দলীয় জেলা কার্যালয়ে এক কর্মী সভায় যোগ দেন। সেখানেই তিনি সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ ডাকেন। তিনি স্পষ্টভাবে বলেন, বিধায়ক খুনে বি জে পি কর্মীরা জড়িত নয়। কারন হিংসার রাজনীতিতে বি জে পি বিশ্বাসী নয়। তাই খুন খারাপিতে বি জে পির কোন যোগ নেই। জোর করে বি জে পি নেতা কর্মীদের নাম জড়ান হচ্ছে। মিথ্যা মামলা দিয়ে বি জে পি কর্মীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হচ্ছে। বি জে পিকে কর্মীদের ভয় দেখানো হচ্ছে। পুলিশ দিয়ে বি জে পিকে আটকানো যাবে না। এভাবে বি জে পিকে আটকানোর চেষ্টা চলতে থাকলে বি জে পি রাস্তায় নামবে। মিছিল, মিটিং সব করবে। তখন পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যাবে। তাই আগে থেকে সরকারকে সচেতন করে দিচ্ছি। এই পথে হাঁটবেন না। কারন, বি জে পি আজকাল আর সেই বি জে পি নেই। তাই বি জে পিকে রাস্তায় নামতে বাধ্য করবেন না। মানুষ যাতে নিরাপদে ও শান্তিতে বাঁচতে পারেন, তা নিশ্চত করুক সরকার। কিছুদিন আগেই জয়নগরে তৃণমূল বিধায়ককে খুনের চেষ্টা করা হল। তারপরেই হাঁসখালিতে বিধায়ক খুন হলেন। যেখানে জনপ্রতিনিধিদের নিরাপত্তা নেই, সেখানে সাধারন মানুষের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি।


 তাঁর অভিযোগ, এই রাজ্যে আসলে দুষ্কৃতীরা সাহস পেয়ে গেছে। তারা রাজ চালাচ্ছে। অপরাধ করে কেউ শাস্তি পাচ্ছে না। গত কয়েক মাসে বেশ কিছু খুন হয়েছে। যার অপরাধীরা শাস্তি পায় নি। ফলে দুষ্কৃতীদের মন বল বাড়ছে। তারা অপরাধ বাড়াচ্ছে। এদিকে, যারা বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজের সঙ্গে জড়িত তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সাধারন মানুষের কোন নিরাপত্তা দিতে পারছে না সরকার। আসলে রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা বলে কিছু নেই। সরকারি কাজ হচ্ছে না। কর্মীরা শুধু তৃণমূল নেতা কর্মীদের বাঁচাতে এবং বি জে পিকে আটকাতে ব্যস্ত। এখন গুজোব রটতে আরাম্ভ করেছে। মানুষকে গন পিটুনি দিয়ে মেরে ফেলা হচ্ছে। এখানকার মানুষকে বলবো গুজোবে কান দেবেন না। এদিন দীলিপবাবুকে তৃণমূল বিধায়ক খুনে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের নামে অভিযোগ দায়ের হওয়া নিয়ে প্রশ্ন করা হয়। তিনি বলেন, যেকোন মানুষের বিরুদ্ধেই অভিযোগ করা যায়। সেটাই সত্যি, এমনটা নয়। আমরাও তৃণমূলের ফিরহাদ হাকিম বা পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের নামে অভিযোগ করতে পারি। মুকুল রায় তদন্ত ছাড়াই তাঁর নাম জড়ানো নিয়ে আইনি পদক্ষেপ নিচ্ছেন। এদিন সভা শেষে তিনি দলীয় নেতা কর্মীদের নিয়ে বারুইপুরের একটি সিনেমা হলে ভারতের সারজিক্যাল স্ট্রাইক নিয়ে সিনেমা 'উড়ি'‌ দেখতে যান।
Bengali Movie Air Hostess

Loading...

No comments

Powered by Blogger.