হাসপাতালের ডাস্টবিনে মিলল সদ্যজাতের দেহ : চাঞ্চল্য


বিশ্বদীপ নন্দী, বালুরঘাট:  বালুরঘাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ডাস্টবিনে পড়ে থাকা লাল ক্যারিব্যাগে
 অপরিণত সদ্যজাত শিশু দেহ উদ্ধার হওয়াকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়ালো। আজ ডাস্টবিন পরিস্কার করতে আসা   সাফাইকর্মীদের প্রথম নজরে আসে ঘটনাটি । সাফাইকর্মী বিকাশ সিং এদিন দেখেন লাল ক্যারিব্যাগের মধ্যে অপরিণত সদ্যজাত শিশু। এরপরেই ডাস্টবিনের মধ্যে অপরিণত শিশু পড়ে থাকার ঘটনা হাসপাতাল চত্বরে চাউড় হতেই সদ্যজাত শিশুটি হাসপাতালের না বাইরে থেকে এনে ডাস্টবিনে ফেলা হয়েছে তা নিয়ে হাসপাতাল চত্বরে শোরগোল পড়ে যায়। ঘটনার খবর পৌছায় হাসপাতালের সুপারের কাছে। যদিও সাফাইকর্মী বিকাশ সিং এদিন জানান হাসপাতালের ডাস্টবিন থেকে অপরিণত সদ্যজাত শিশুর দেহ উদ্ধারের ঘটনা এই প্রথম নয়, এর পূর্বেও একাধিকবার হাসপাতালের ডাস্টবিনে পড়ে থাকতে দেখা গেছে অপরিণত সদ্যজাত শিশু। তবে হাসপাতাল চত্বরে পুলিশ ও একাধিক  নিরাপত্তাকর্মীর নজর এড়িয়ে কিভাবে ডাস্টবিনে সদ্যজাত শিশুর দেহ পড়ছে সে বিষয়ে সাধারণ মানুষরা প্রশ্ন তুলতে আরম্ভ করেছে। তবে ঘটনার দায় এড়াতে এদিন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা হাসপাতালের সুপার তপন বিশ্বাস এদিন হাসপাতালের ডাস্টবিন থেকে উদ্ধার হওয়া অপরিণত সদ্যজাত শিশুর দেহটি হাসপাতালের নয় এবং কোথা থেকে সদ্যজাত শিশুর দেহটি এল সেটা পুলিশের তদন্তের বিষয়, আমরা পুলিশের কাছে এফ.আই.আর করেছি বলার পাশাপাশি এই বিষয়ে হাসপাতালের পক্ষ থেকে তদন্তের দায়িত্বে থাকা হাসপাতালের সহকারী সুপার অরিন্দম রায়-এর সঙ্গে কথা বলতে বলেন প্রতিবেদককে। জেলা হাসপাতালের সহকারী সুপার অরিন্দম রায় এদিন দাবী করে বলেন চলতি মাসের এখনও পর্যন্ত সময়ে বালুরঘাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ৫টি অপরিণত মৃত সদ্যজাত শিশু জন্মগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে ৪টি  অপরিণত মৃত সদ্যজাত শিশুকে শিশুর পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে এবং একটি অপরিণত মৃত সদ্যজাত শিশু এখনও হাসপাতালে আছে। তবে তিনি এদিন অনুমান করে এও বলেন যে হয়ত বা কোন পরিবার  অপরিণত মৃত সদ্যজাত শিশু হাসপাতাল থেকে গ্রহণ করে ডাস্টবিনে ফেলে যেতে পারে। পাশাপাশি হাসপাতালের নিরাপত্তা আরও জোড়দার হওয়া উচিৎ একথা জানানোর পাশাপাশি জেলা হাসপাতালের সহকারী সুপার অরিন্দম রায় এদিন জানিয়েছেন বালুরঘাট সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের পিছনের দিকে নজরদারি বাড়াতে গোটা  হাসপাতাল জুড়ে সি.সি.টি.ভি লাগানোর পরিকল্পনা নিতে চলেছে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

Loading...

No comments

Powered by Blogger.