কৃষকরা ক্ষতিপূরণ না পেয়ে বিক্ষোভে সামিল





রেখা রায়, উত্তর দিনাজপুর :বাইপাসে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা ক্ষতিপূরণ না পেয়ে অনির্দিষ্ট কালের জন্য অবস্থান বিক্ষোভে শামিল হয়। বৃহস্পতিবার উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুর মহকুমা শাসকের দপ্তরে এই অবস্থান বিক্ষোভ চলাকালীন রীতিমতো গর্জে ওঠেন কৃষকরা ।তাদের অভিযোগ, এক বছর আগে বাইপাসের কাজ শুরু হওয়ার সময় কৃষকদের অন্যভাবে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল মন্ত্রী এবং প্রশাসনের তরফে বলা হয়েছিল, পরিবার পিছু দুটো করে গীতাঞ্জলি আবাসনের ঘর বরাদ্দ করা হবে, শিক্ষিতদের চাকরি দেওয়া হবে। এমনকি পরিবার পিছু একজনকে সিভিক ভলেন্টিয়ার হিসেবে নিয়োগ করা হবে। এসব প্রতিশ্রুতি যে গত এক বছরে কোন সুবিধা না পেয়ে বুঝে গেছেন ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা। আর তাই এই লাগাতার প্রশাসনিক উদাসীনতাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য অবস্থান বিক্ষোভে শামিল হলেন বাইপাস ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক সমিতির শতাধিক কৃষক। ওই সংগঠনের তরফে উপস্থিত হয়েছিলেন শতাধিক কৃষক। তাদের নেতৃত্ব দেন গোয়ালপোখরা বিধান সভার ফরওয়ার্ড ব্লক বিধায়ক আলি ইমরান রমজ। তার সঙ্গে এই দাবির সমর্থনে পাশে ছিলেন ট্রানস্ফারড এরিয়া অফ সূর্যাপুর অরগানাইজেশনের মুখপাত্র পাশারুল আলম ।বিধায়ক আলি ইমরান রমজ জানান, বাইপাস এর কাজ শুরু হওয়ার সময় এক বছর আগে সংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো সহ চব্বিশ ঘণ্টার মধ্যে প্রতিটি কৃষকের একাউন্টে টাকা ঢুকিয়ে দেবার প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়েছিল প্রশাসনের তরফে। তা এক বছর অতিক্রান্ত হলেও আদৌ পালন করা হয়নি। এমনকি সে সময়ে বাইপাসের জন্য কৃষকদের বাড়িঘর সমস্ত ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। আর তারপর থেকেই চরম আর্থিক সংকটের মুখে দাঁড়িয়ে কৃষকরা। তাদের পরিবারের সদস্যদের কে নিয়ে বর্তমানে কেউ রাস্তায়, কেউ গাছ তলায়,এমনকি অন্য বাড়ির উঠোনে ত্রিপাল টানিয়ে ছোট ছোট শিশুদের নিয়ে আশ্রয় নিয়েছে। অবিলম্বে ভবিষ্যৎ সুরক্ষিত করবার দায়িত্ব নিতে হবে প্রশাসনকে। এমনই সংশ্লিষ্ট অন্যান্য দাবিও জোরালো ভাবে জানানো হয় ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট খুরশেদ আলম কে।তিনি আরো বলেন, প্রায় দেড়শ জন কৃষক  এই আন্দোলনকে চালিয়ে নিয়ে যাবার ক্ষেত্রে সামিল হয়েছেন। এরপর একে একে অন্য কৃষকরাও সেখানে যোগ দেবেন।ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট খুরশেদ আলম দাবি বিবেচনা করার পাশাপাশি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন।

Bengali Movie Air Hostess

Loading...

No comments

Powered by Blogger.