প্রেমে প্রতারণা: গলায় ফাঁস জড়িয়ে প্রেমিকের সামনেই আত্মঘাতী প্রেমিকা!




অর্ক রায়, মালদাঃ প্রেমে প্রতারণা। গলায় ফাঁস জড়িয়ে প্রেমিকের সামনেই আত্মঘাতী প্রেমিকা। আত্মঘাতী প্রেমিকার শিক্ষক অভিযুক্ত ওই প্রেমিক।

অভিযোগ, একাধিক মেয়ের সঙ্গে অভিযুক্তের সম্পর্ক ছিল। প্রেমে প্রতারণা করায় আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় সে। পরিবারের লোকেদের মধ্যে জানাজানি হলে সেখান থেকে পালিয়ে যায় অভিযুক্ত প্রেমিক। পুলিস তাকে খুঁজছে। চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে গাজোল থানার গাজোল-‌১ গ্রাম পঞ্চায়েতের শঙ্করপুরে।

পুলিস জানিয়েছে, আত্মঘাতী ওই প্রেমিকার নাম দেবলীনা সরকার(‌১৫)‌। সে স্থানীয় শ্যামসুখী উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী ছিল। বাবা জগন্নাথ সরকার পেশায় ব্যবসায়ী। দেবলীনারা ২ বোন। সে ছিল বাড়ির ছোট। দিদি পুজা বিবাহিত। পরিবার সূত্রে জানা গেছে, অভিযু্ক্ত যুবকের বাড়ি গাজোলের বিবেকানন্দপল্লীতে। বছর দুয়েক আগে দেবলীনার যখন অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী, তার গৃহশিক্ষক ছিল অভিযুক্ত যুবক। তখন থেকেই প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে তাদের মধ্যে। মৃতার কাকু মৃণাল সরকার অভিযোগ করে বলেন,‘‌আমার জানতে পারলে ওই শিক্ষকের কাছে পড়ানো বন্ধ করে দিই। বছর খানেক আগে আমাদের মেয়েকে পটিয়ে তাকে নিয়ে পালায় ওই যুবক। গিয়ে তারা বিয়ে করে। মেয়ের বয়স তখন ১৪। থানায় অভিযোগ জানালে তাদের দার্জিলিংয়ের লাভা থেকে পুলিস উদ্ধার করে। পুলিসি হেফাজতেও ছিল অভিযুক্ত যুবক। পরে দুই পরিবার বসে সিদ্ধান্ত নেয়, মেয়ে যুবতী হলে ওই ছেলের সঙ্গেই বিয়ে দেওয়া হবে। এবং তাই গৃহীতই হয়।’‌ পুলিস জানিয়েছে, মেয়েটি ঘরে একাই ঘুমিয়ে ছিল। গভীর রাতে দিকে অভিযুক্ত যুবক বাড়ির জানালা থেকে কথা বলে। তারপর ওই যুবকের সামনেই গলায় ওর্ণা জড়িয়ে ঝুলে পড়ে সে। এদিকে, মেয়েটির মৃত্যু নিশ্চিত দেখে, অভিযু্ক্ত পরিবারের লোকেদের ঘুম থেকে তোলে। তারপর সে সেখান থেকে পালায়। আরেক কাকা গণেশ সরকার অভিযোগ করে বলেন,‘‌আমরা এখন শুনতে পাচ্ছি, ছেলেটির একাধিক মেয়ের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল। এই নিয়ে আমাদের মেয়ের সঙ্গে গন্ডগোল। কাল গভীর রাতে দিকে হয়ত আমাদের মেয়েকে আর বিয়ে করবে না বলে কথা কাটাকাটি হয়, তার জেরেই আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় আমাদের মেয়ে বলে আমাদের ধারণা। আমরা গাজোল থানায় ওই যুবকের নামে অভিযোগ জানিয়েছি।’‌ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিস। অভিযুক্ত যুবকের খোঁজ চলছে।
Loading...
Powered by Blogger.