সারদা মামলায় সিবিআই দফতরে সুব্রত বক্সি



সারদা মামলায় সিবিআই দফতরে সোমবার প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক সুব্রত বক্সিকে৷ এদিন বেলা ১১টা নাগাদ সিজিও কমপ্লেক্সে আসেন তিনি৷ সূত্রের খবর, তৃণমূল কংগ্রেসের দলীয় তহবিল নিয়ে সুব্রতবাবুকে জিজ্ঞাসাবাদ করছেন সিবিআই আধিকারীকরা৷ পরে সুব্রতবাবু বলেন, ‘‘প্রতারিতদের দ্রুত টাকা ফিরিয়ে দিতে হবে৷’’ দীর্ঘ পাঁচ বছর কেটে গেলেও সিবিআই প্রকৃত দোষীদের ধরতে পারেনি বলে এদিন অভিযোগ করেন তিনি৷ কেন্দ্রের শাসক দল উদ্দেশ্য প্রণোদিতভোবে সিবিআইকে ব্যবহার করছে বলেও এদিন দাবি করেন তিনি৷সারদা ও নারদ কেলেঙ্কারির পর প্রশ্ন ওঠে তৃণমূলের তহবিল নিয়ে৷ প্রশ্ন ওঠে ওই তহবিলে টাকা কোথা থেকে এল? তৃণমূল সুপ্রিমো একাধিকবার বলেছেন তাঁর লেখা বই ও ছবি বিক্রি করেই দলীয় তহবিল পরিপুষ্ট হয়েছে৷ সেই তহবিল থেকেই ভোটে খরচ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস৷ ক্রেতার তালিকায় নাম ছিল বেআইনী অর্থ লগ্নি সংস্থার মালিকদের৷ তহবিলের টাকা কাউকে ট্রান্সফার করা হয়েছিল কিনা সহ এই সংক্রান্ত বিষয়েই রাজ্যের শাসক দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে৷

কয়েক সপ্তাহ আগে, সিবিআইয়ের তরফে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদককে তলব করা হয়৷ বলা হয় ১০ থেকে ১২ই ডিসেম্বরের মধ্যে তাঁকে দেখা করতে হবে সিবিআই আধিকারিকদের সঙ্গে৷৷ তারই প্রেক্ষিতে এদিন সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই দফতরে যান সুব্রত বক্সি৷ তাঁর বয়ান রেকর্ড করা হচ্ছে বলে সূত্রের খবর৷ সুব্রত বক্সি ছাড়াও ওই সময়ই সিবিআই নোটিস পাঠায় তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ ডেরেক ও'ব্রায়েন এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘ দিনের সচিব মানিক মজুমদারকে৷

বিগত বেশ কয়েক মাস ধরেই এই ছবি সংক্রান্ত ব্যাপারে তদন্তে অগ্রসর হতে সিবিআই আধিকারিকরা একাধিকবার জেরা করেন ব্যবসায়ী শিবাজি পাঁজাকে। এছাড়াও ছবি কেনার নথি চেয়ে পাঠানো হয় অন্যান্য ব্যবসায়ূদের থেকেও৷ জেরা করা হয় সারদা মামলায় জামিনে মুক্ত তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ কুণাল ঘোষকে৷ বাগ পড়েননি আসিফ খানও৷ গ্রেফতার করা হয়েছিল প্রাক্তনমন্ত্রী মদন মিত্রকেও৷সারদা, রোজভ্যালি ও নারদ মামলায় সিবিআইয়ের ভূমিকা নিয়ে আগেই অসন্তোষ প্রকাশ করেন তৃণমূল সুপ্রিমো৷ বাদ যাননি দলের অন্যন্য নেতারাও৷ তাদের অভিযোগ বিজেপি তৃণমূলকে অপদস্থ করতে সিবিআইকে ব্যবহার করছে৷ এবার ফের বেআইনী অর্থলগ্নি সংক্রান্ত মামলায় রাজ্যের শাসক দলের নেতা, মন্ত্রীদের ডার পড়ছে৷ এই তৎপরতা অনেকটাই রাজনৈতিক বলে দাবি তৃণমূলের৷ তবে এর মধ্যে দিয়েই রাজনীতিতে কোনও নতুন মোড় আসে কিনা সে দিকেই লক্ষ্য সবার৷
Bengali Movie Air Hostess

Loading...

No comments

Powered by Blogger.