রোহিতকে নিয়ে লেখা পোস্টার ওয়াংখেড়েতে ঢোকার আগেই ছুড়ে ফেলা হল

রোহিতকে নিয়ে লেখা পোস্টার ওয়াংখেড়েতে ঢোকার আগেই ছুড়ে ফেলা হল

২০২৪ আইপিএলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের প্রথম হোম গেমের আগে ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামের বাইরে একটি অবাক করা দৃশ্য দেখা গিয়েছে। রোহিত শর্মাকে নিয়ে যে পোস্টারগুলি এনেছিলেন সমর্থকেরা, সেগুলি নিয়ে কাউকে ভিতরে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। সব পোস্টারগুলি বাইরে ঢিপ করে ফেলে দেওয়া হয়েছিল।

ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিয়ো ক্লিপে দেখা গিয়েছে, ভক্তরা স্টেডিয়ামে প্রবেশের আগে তাঁদের পোস্টার এবং প্ল্যাকার্ডগুলিকে মাঠে ঢোকার আগে বাইরে রেখে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। একজন দাবি করেছেন যে, কোনও রকম বার্তা বহন করার অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। মুম্বই ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র একথা অস্বীকার করলেও, এমন খবর শোনা যাচ্ছে যে, হার্দিক পান্ডিয়াকে নিয়ে কেউ বিরোধীতা করলেই, তাঁকে স্টেডিয়াম থেকে বের করে দেওয়া হবে।

হার্দিকের নেতৃত্বে এমআই তাদের প্রথম দু’টি অ্যাওয়ে ম্যাচ- আমদাবাদ এবং হায়দরাবাদে হেরে যায়। এরপর মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক হওয়ার পর, হার্দিক প্রথম বার হোম গ্রাউন্ডে খেলতে নেমেছেন। তবে হার্দিককে ঘিরে যাবতীয় বিরোধীতা ম্যাচ শুরুর আগেই স্টেডিয়ামের বাইরে শেষ করে দেওয়া হয়।

পাঁচ বারের চ্যাম্পিয়নদের অধিনায়ক হিসেবে হার্দিককে নিয়ে ভক্তরা, বিশেষ করে মুম্বইয়ের মানুষ বেশ বিরক্ত। তাঁকে কেই রোহিতের পরিবর্ত হিসেবে মেনেও নিতে পারছেন না। গত বছরের ডিসেম্বরে হার্দিককে আনুষ্ঠানিক ভাবে রোহিতের বদলে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের অধিনায়ক হিসেবে প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল। কিন্তু তিন মাস কেটে যাওয়ার পরেও, জনসাধারণ এখনও তাঁকে মানতে পারেননি। তবে সকলের মুখ বন্ধ করতে হলে হার্দিককে নিজেকে ভালো পারফরম্যান্স করতে হবে। নিজেকে প্রমাণ করতে হবে।

হার্দিক এখনও আইপিএলে বিশেষ ছন্দে নেই। প্রথম দু’টি ম্যাচ মিলিয়ে তিনি ৩৫ রান করেছিলেন এবং একটি উইকেট নিয়েছিলেন। তৃতীয় ম্যাচে রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে ওয়াংখেড়েতে ২০ রানের মধ্যে যখন মুম্বই ৪ উইকেট হারিয়ে চাপে, সেই সময়ে ব্যাট করতে আসেন হার্দিক। তিনি খারাপ খেলছিলেন না। কিন্তু ২১ বলে ৩৪ করে আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে যান হার্দিক। যে ম্যাচে হার্দিককে আরও বেশিক্ষণ উইকেটে টিকে থেকে নিজেকে প্রমাণ করতে হত, সেই ম্যাচেও নজর কাড়া কিছু করতে পারলেন না মুম্বইয়ের নতুন অধিনায়ক।

সোমবার রাজস্থান রয়্যালসের বিরুদ্ধে ম্যাচে মুম্বইয়ের ব্যাটাররা কার্যত প্রত্যেকেই নিরাশ করেছেন। তার মধ্যে গোল্ডেন ডাক করে ফিরেছেন রোহিত শর্মা, নমন ধীর এবং ব্রেভিস। এঁরা প্রত্যেকেই ট্রেন্ট বোল্টের শিকার। বাকিদের হালও তথৈবচ। যার নিটফল, টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে নির্দিষ্ট ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১২৫ রানই করতে পারে মুম্বই। ২৯ বলে তিলক বর্মার ৩২ এবং ২১ বলে হার্দিক পান্ডিয়ার ৩৪ রানই যেটুকু অক্সিজেন হয়ে মুম্বইয়ের। এদিন মুম্বইয়ের ব্যাটিং অর্ডারকে নাকানিচোবানি খাওয়ানোর শুরুটা করেছিলেন রাজস্থানের ট্রেন্ট বোল্ট (৩), সঙ্গ দিয়েছিলেন নান্দ্রে বার্গার (২)। পরে যুজবেন্দ্র চাহাল (৩) বাকি কাজটি করেন।

Sports