প্রতিরক্ষা মন্ত্রী পদ থেকে সের্গেই শোইগুকে সরিয়ে দিলেন পুতিন! কে এলেন নতুন পদে?

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী পদ থেকে সের্গেই শোইগুকে সরিয়ে দিলেন পুতিন! কে এলেন নতুন পদে?

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন তাঁর দীর্ঘদিনের ঘনিষ্ঠ সহযোগী প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগুকে ওই পদ থেকে সরিয়ে দিলেন। তাঁর জায়গায় আনা হয়েছে অর্থনীতিবিদ আন্দ্রে বেলোসভকে। রাশিয়ার সংবাদ সংস্থাগুলিকে ক্রেমলিন জানিয়েছে। প্রেসিডেন্ট পুতিন নিকোলাই পাত্রুশেভকে সরিয়ে সের্গেই শোইগুকে নিরাপত্তা পরিষদের নতুন সেক্রেটারি মনোনীত করে ডিক্রিও জারি করেছেন। শোইগু ২০১২ সাল থেকে মন্ত্রী ছিলেন। সুতরাং রাশিয়ার নিরাপত্তা ব্যবস্থাও দেখবেন তিনি। রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ হয়েছিল ২০২২ সালে। তার দু’‌বছর পর এই পরিবর্তন সবাইকে অবাক করেছে। যা নিয়ে জোর চর্চা শুরু হয়েছে।

এদিকে ইউক্রেন যুদ্ধে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেছিলেন সের্গেই শোইগু। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ সাংবাদিকদের জানান, শোইগু এই সেক্টরে (প্রতিরক্ষা) কাজ চালিয়ে যাবেন। কারণ তিনি এই বিষয়গুলি খুব ভাল করে জানেন। তিনি তার আগের কাজের জায়গায় তার সহকর্মীদের সঙ্গে একত্রে দায়িত্ব পালন করেছেন এবং তিনি এটি খুব ভালভাবে জানেন। গত মার্চ মাসের নির্বাচনে জয়ী হয়ে নতুন সরকার গঠন করছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন। তাই পুতিনকে সাংবিধানিকভাবে সরকারের নানা পদে মন্ত্রীদের নিয়োগ করতে নতুন তালিকা তৈরি করতে হচ্ছে।

অন্যদিকে সের্গেই লারলভ রাশিয়ার প্রবীণ বিদেশমন্ত্রী স্বপদে রয়ে গেলেন। আর একই কাজ করে যাবেন বলে ক্রিমলিন জানিয়েছে। কিন্তু আন্দ্রে বেলোসভ অর্থনীতি বেশি ভাল বোঝেন যুদ্ধক্ষেত্র থেকে। তাহলে এমন দায়িত্ব তাঁকে কেন দেওয়া হল?‌ উঠছে প্রশ্ন। ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ এই প্রশ্নের উত্তরে বলেছেন, রাশিয়ার এই পরিবর্তন আসলে ১৯৮০ সালের মধ্যবর্তী সময়কার সোভিয়েত ইউনিয়নের প্রেক্ষিতের বার্তা দিতে চাইছে। যখন সেনাবাহিনী এবং আইনসভার ক্ষেত্রে ৭.‌৪ শতাংশ খরচ বহন করা হতো।

এছাড়া চলতি বছরের নির্বাচনে জয়ী হয়ে টানা পঞ্চমবারের মতো রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট আসনে বসে অনন্য রেকর্ড গড়েছেন পুতিন। তাই আরও ৬ বছরের জন্য রুশ প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালনের সুযোগ পাচ্ছেন পুতিন। গোটা দেশের আর্থিক শ্রীবৃদ্ধি ঘটাতেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দিমিত্রি পেসকভের কথায়, ‘‌এই একজন যিনি নতুন ভাবনা সামনে নিয়ে আসবেন আবার একজনই যুদ্ধক্ষেত্রে জয়ী হবে।’‌ আসলে খরচে লাগাম পড়াতেই এই সিদ্ধান্ত পুতিনের বলে মনে করা হচ্ছে।

World