‘গোপনে’ মহড়া চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও তাইওয়ান

‘গোপনে’ মহড়া চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও তাইওয়ান

যুক্তরাষ্ট্র ও তাইওয়ানের নৌবাহিনী প্রশান্ত মহাসাগরে যৌথ মহড়া চালিয়েছে। গত এপ্রিল মাসে দু’দেশের এই যৌথ মহড়া অনুষ্ঠিত হয়।

মঙ্গলবার (১৪ মে) এক প্রতিবেদনে সংবাদমাধ্যম রয়টার্স জানায়, ওয়াশিংটন-তাইপের এই যৌথ মহড়া আনুষ্ঠানিকভাবে নয়, অনেকটা নিরবে হয়েছে। চীনের ক্রমাগত সামরিক হুমকির মধ্যেই দু’দেশ পারস্পারিক সহযোগিতা বাড়ানোর জন্য এই মহড়া চালিয়েছে। ‘তাইওয়ানের আকাশ প্রতিরক্ষা শনাক্তকরণ’ অঞ্চলে প্রায় প্রতিদিনই চীনের অনুপ্রবেশ এবং দ্বীপটির কাছে চীনা বাহিনীর মহড়ার মধ্যে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ওয়াশিংটন ও তাইপে তাদের সামরিক সহযোগিতা বাড়ানোর চেষ্টা করছে। 

যুক্তরাষ্ট্র ও তাইওয়ানের সামরিক সমঝোতা বা সফর এবং প্রশিক্ষণের খবর প্রায় সময়ই আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয় না। কারণ এতে চীনের আপত্তি রয়েছে। চীন চায় না যুক্তরাষ্ট্র ও তাইওয়ানের কোন যৌথ সামরিক কর্মকাণ্ড থাকুক। চীন অনেকদিন থেকেই গণতান্ত্রিকভাবে শাসিত তাইওয়ানকে তার নিজস্ব এলাকা বলে দাবি করে, যা দ্বীপটি দৃঢ়ভাবে প্রত্যাখ্যান করে আসছে। দু’দেশের মহড়াটি গত মাসে পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরে অনুষ্ঠিত হয়েছিল বলে কয়েকটি সূত্র জানিয়েছে। তবে তারা সংবেদনশীলতার কারণে বিষয়টি প্রকাশ না করার অনুরোধ করেছিলেন। সেই সূত্রটি আরও জানিয়েছে, রণতরি, সরবরাহ এবং সহায়তা জাহাজসহ উভয় পক্ষের নৌবাহিনীর প্রায় অর্ধ ডজন জাহাজ অংশ নিয়েছে দিনব্যাপী এই অনুশীলনে। এছাড়াও দুই দেশের নৌবাহিনী জলের নিচে লক্ষ্যবস্তু অনুসন্ধানসহ বিভিন্ন কৌশলগত মহড়া চালিয়েছে।  

এদিকে এক বিবৃতিতে তাইওয়ানের নৌবাহিনী জানিয়েছে, প্রায়ই অন্যান্য দেশের জাহাজের সঙ্গে যোগাযোগ এবং প্রয়োজন অনুসারে ‘এনকাউন্টার ড্রিল’ পরিচালনা করে তাইপে। তবে এ বিষয়ে আর বিস্তারিত জানাননি তারা। বিষয়টি নিয়ে কোন মন্তব্য আসেনি যুক্তরাষ্ট্রের তরফ থেকেও। 

World