কাজ করছে না প্যানিক বাটন! মন্ত্রীকে চিঠি বেসরকারি পরিবহণ মালিকদের

কাজ করছে না প্যানিক বাটন! মন্ত্রীকে চিঠি বেসরকারি পরিবহণ মালিকদের

যাত্রীদের সুবিধার্থে যানবাহনে প্যানিক বাটন এবং ভেহিকেল লোকেশন ট্র্যাকিং ডিভাইস লাগানোর নির্দেশ দিয়েছিল পরিবহণ দফতর। সেই মতোই সমস্ত যানবাহনে প্যানিক বাটন এবং ভিএলটিডি বসানো শুরু হয়েছে। তবে এই সমস্ত যন্ত্র ঠিকমতো কাজ করছে না বলেই অভিযোগ তুলেছেন বেসরকারি যানবাহনের মালিকরা। তাদের বক্তব্য, যতদিন না পর্যন্ত এই ব্যবস্থা পুরোপুরি ত্রুটি মুক্ত হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত এই যন্ত্র বসানোর সময় সীমা বাড়ানো হোক। যদিও, পরিবহণমন্ত্রী স্নেহাশিস চক্রবর্তী জানিয়ে দিয়েছেন, সময়সীমা বাড়ানোর কোনও প্রশ্ন নেই। যা সময় দেওয়া হয়েছে সেটা যথেষ্ট।

প্যানিক বাটনের মাধ্যমে কোনও যাত্রী সমস্যায় পড়লে তা ব্যবহার করতে পারবেন। তা হলে পুলিশ কন্ট্রোল রুমে পৌঁছে যাবে সেই বার্তা। এরপর নিকটবর্তী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে দ্রুত পৌঁছে যাবে। এরপরেই সেখানে পুলিশ গিয়ে পদক্ষেপ করবে। আর গাড়িটি কোথায় রয়েছে তা ট্র্যাক করা যাবে ভিএলটিডির মাধ্যমে। সারাদেশের মতো এই রাজ্যেও ভিএলটিডি এবং প্যানিক বাটন বসানো শুরু হয়। সে ক্ষেত্রে অভিযোগ, যে সংস্থা এই যন্ত্র বিক্রি করছে তারা অনেক বেশি দাম নিচ্ছে। তখন পরিবহণ দফতরের তরফে আরও বেশ কিছু সংস্থাকে এই যন্ত্র তৈরি করার জন্য ছাড়পত্র দেওয়া হয়। তাতে দাম কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসে। 

এই যন্ত্র বসাতে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা খরচ। তবে এত টাকা খরচ করো ঠিকমতো কাজ করছে না এই যন্ত্র। তাতেই অসন্তুষ্ট বেসরকারি যানবাহনের মালিকরা। এ বিষয়ে বাস মিনিবাস সমন্বয় সমিতির সাধারণ সম্পাদক রাহুল চট্টোপাধ্যায় অভিযোগ করেছেন প্যানিক বাটন ঠিকমতো কাজ করছে না। বাটন পুশ করলে তা পৌঁছাচ্ছে না পুলিশের কন্ট্রোল রুমে। তাছাড়া লোকেশন দেখাচ্ছে মোবাইলে। তবে সে ক্ষেত্রে এত খরচ না করে জিপিএস ট্র্যাকার বসালেই কাজ হয়ে যেত বলে দাবি বাস মালিকদের। এই অবস্থায় যতদিন পর্যন্ত এই ব্যবস্থা পুরোপুরিভাবে ত্রুটিমুক্ত হচ্ছে ততদিন পর্যন্ত এই যন্ত্র বসানোর ক্ষেত্রে সময় বাড়ানো হোক বলে দাবি বেসরকারি যানবাহন সংগঠনগুলির।

এই দাবিতে বেসরকারি বাস সংগঠন,  অনলাইন ক্যাব অপারেটরদের সংগঠন এবং  পুলকারদের সংগঠন পরিবহনমন্ত্রীকে চিঠি দিয়েছে। তবে পরিবহণ মন্ত্রী জানিয়েছেন, এই অভিযোগ পুরোপুরি ঠিক নয়। ভিএলটিডি বসানোর জন্য অনেক সময় দেওয়া হয়েছে আর সময় দেওয়া সম্ভব নয়। তবে যে সমস্ত সংস্থা ত্রুটিপূর্ণ ডিভাইস দিয়েছে তা তাদের বরদাস্ত করা হবে না। তাদের বাতিল করা হবে। কোনওভাবে ঢিলেমি চলবে না।

West Bengal