এয়ার ইন্ডিয়ার উড়ান বাতিলের জের! স্বামীর মৃত্যুর আগে দেখা হল না স্ত্রীর

এয়ার ইন্ডিয়ার উড়ান বাতিলের জের! স্বামীর মৃত্যুর আগে দেখা হল না স্ত্রীর

গত সপ্তাহে এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের (এআই) ফ্লাইট বাতিল হওয়ার কারণে মারা যাওয়ার আগে অসুস্থ স্বামীর সঙ্গে দেখা করতে পারলেন না এক তরুণী। বছর চব্বিশের ওই তরুণীর পরিবার জানিয়েছে, স্বামীর সঙ্গে দেখা করার জন্য ওমানের মাস্কাটে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বিমান কর্মীর অপ্রতুলতার দরুণ সেদিন তাঁর নির্দিষ্ট বিমানটি বাতিল হয়।

২৪ বছর বয়সী অমৃতা সিং-এর ৮ মে ওমানের মাস্কাটে যাওয়ার কথা ছিল। সেখানে তাঁর স্বামী নাম্বি রাজেশকে হৃদরোগের কারণে একটি বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করা হয়েছিল। বিমান সংস্থার কেবিন ক্রুর ঘাটতির কারণে তিরুবনন্তপুরম থেকে সকাল সাড়ে আটটার এআইই ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছিল।

পরবর্তীকালে, অমৃতা এবং তাঁর মা চিত্রা তাঁর স্বামীর অবস্থা সঙ্কটজনক বলে অনেক অনুরোধ করার পরে, বিমান সংস্থা পরের দিন একই ফ্লাইটের টিকিট ব্যবস্থা করে।

তবে কয়েশ ক্রু সদস্য গণহারে ‘অসুস্থতাজনিত ছুটিতে’ চলে যাওয়ায় আকস্মিক ধর্মঘটের কারণে পরের দিন অর্থাৎ ৯ মে ফ্লাইটটিও বাতিল করা হয়।

তিরুবনন্তপুরমে অটোরিকশা চালক অমৃতার কাকা রাজন বলেন, “দ্বিতীয়বার যখন ফ্লাইট বাতিল করা হয় তখন আমরা সবাই খুব বিচলিত হয়ে পড়েছিলাম। হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার সময় রাজেশ মাস্কাটে একা ছিলেন এবং অমৃতা সত্যিই তার সঙ্গে থাকতে চেয়েছিলেন। এরপর টিকিট বাতিল করে টাকা ফেরত নেওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না। আমরা অন্যান্য এয়ারলাইন্সের মাধ্যমেও টিকিটের জন্য চেষ্টা করেছি, কিন্তু ব্যাপক চাহিদার কারণে আমরা টিকিট পাইনি।’

পরে হাসপাতালে রাজেশের অবস্থার উন্নতি হলে পরিবারের লোকজন ফোনে কথা বলেন।

সেই সময় তিনি অসুস্থতা কাটিয়ে উঠে ছিলেন এবং জানিয়ে ছিলেন যে তিনি শীঘ্রই কেরলে যাবেন। তিনি তিন দিন হাসপাতালের আইসিইউতে ছিলেন এবং ১১ মে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয় তিনি  জানান, যে তিনি ভাল বোধ করছেন । হিন্দুস্তান টাইমসকে অমৃতা বলেন. ‘তবে আমাদের উদ্বেগ ছিল যে তিনি যেখানে থাকতেন সেখানে তিনি একা ছিলেন। রবিবার রাতে শেষবার তাঁর সঙ্গে আমার কথা হয়েছিল যখন তিনি আমাকে বলেছিলেন যে তিনি ১৬ মে কেরালার টিকিট বুক করেছিলেন। কিন্তু তা হওয়ার কথা ছিল না’।

পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, গত ৮ বছর ধরে মাসকাটে একটি স্কুলের আইটি ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত রাজেশ সোমবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

“তিনি সেখানে একা ছিলেন এবং তাই অবশ্যই মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ছিলেন। তার বড় ধরনের কোনো স্বাস্থ্য সমস্যা ছিল না। অমৃতা যদি এআইইর বিমানে মাসকট যেতে পারতেন, তাহলে তিনি তাঁকে সাহায্য করতে পারতেন এবং তিনি মারা যেতেন না।

পরিবার বলেছে যে তারা এআইইর বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেবে কারণ রাজেশের মৃত্যুর পরে বিমান সংস্থাকে।

রাজেশের মৃত্যুর পর তিরুবনন্তপুরম বিমানবন্দরে এয়ারলাইন ম্যানেজারকে মেসেজ পাঠান অমৃতার মা। কিন্তু এখনও কোনও সাড়া মেলেনি। বাতিল হওয়া টিকিটের টাকা আমরা এখনও ফেরত পাইনি।

বুধবার রাজেশের মরদেহ তিরুবনন্তপুরম বিমানবন্দরে পৌঁছবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এয়ার ইন্ডিয়া এক্সপ্রেসের কর্মকর্তারা এই নিয়ে কোনও মন্তব্য করেননি এবং মন্তব্য পাওয়া গেলে প্রতিবেদনটি আপডেট করা হবে।

India Offbeat