কিশানগঞ্জ স্টেশনে উদ্ধার কলকাতার অপহরণ হওয়া নাবালিকা


কিশানগঞ্জ আরপিএফের উদ্যোগে আজ উদ্ধার হল কলকাতার উত্তর ২৪ পরগনার নওয়াপাড়া থানা এলাকার গারুলিয়া গ্রামের অপহরণ হওয়া নাবালিকা। কিশানগঞ্জ স্টেশন এর প্ল্যাটফর্ম থেকে শিয়ালদহ গামী তিস্তা তোর্সা এক্সপ্রেস থেকে উদ্ধার করা হয় তাকে। আরপিএফ সুত্রে জানা গেছে উদ্ধার হওয়া নাবালিকার বাড়ি উত্তর ২৪ পরগনা জেলার নোয়াপাড়া থানার অন্তগত গরুলিয়া গ্রামে গতকাল তাকে অপহরণ করে তিন দুষ্কৃতী। কিশান্গঞ্জ আরপিএফ সূত্রে জানা গেছে নাবালিকা তার পরিজনের সঙ্গে উত্তর ২৪ পরগনা থানার শ্যামনগর এ একটি ব্যাংকে পাসবুক নিতে যাওয়ার সময় ৩ অপহরণ কারী নাবালিকাকে  অপহরণ করে। পড়ে তারা তাকে ট্রেনে করে শিলিগুড়িতে নিয়ে আসে, শঙ্কাহীন অবস্থায় তাকে অসুস্থ রোগী বলে ট্রেনে করে নিয়ে আসা হয়।


 শিলিগুড়িতে নিয়ে এসে তাকে একটি ঘরে আটকে রাখে অপহরণকারীরা বলে নাবালিকা অভিযোগে জানিয়েছেন কিশান্গঞ্জ স্টেশন আরপিএফ কে। পীড়িত নাবালিকা আজ সকালে অবশেষে শিলিগুড়ির ওই বাড়ি থেকে পালাতে সক্ষম হয়, ওই বাড়ি থেকে পালিয়ে নাবালিকা সোজা পৌঁছে যায় শিলিগুড়ির এনজেপি রেলওয়ে স্টেশনে। সেখানে এক ব্যক্তির থেকে মোবাইল ফোন সংগ্রহ করে বাড়িতে নাবালিকা জানায় সে দুষ্কৃতীদের হেফাজত থেকে পালাতে সক্ষম হয়েছে এবং তিস্তা-তোর্সা এক্সপ্রেসে কলকাতা ফিরছে। বিষয়টি তার পরিবারের লোকজন জানার পর শিয়ালদা জিআরপি এবং আরপিএফ কে জানায়। শিয়ালদা আরপিএফ এবং জিআরপি বিষয়টি জানায় নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন জিআরপি এবং আরপিএফ কে। কতক্ষণে স্টেশন থেকে রওনা দিয়ে দিয়েছিল তিস্তা তোর্সা এক্সপ্রেস। বিষয়টি জানানো হয় কিশান্গঞ্জ আরপিএফ এবং জিআরপিকে। খবর পাওয়ামাত্র কিশান্গঞ্জ আর পি এফ তিস্তা তোর্সা এক্সপ্রেস ট্রেনে তল্লাশি শুরু করে তল্লাশিতে দেখা যায় এক যুবতী রেলের প্রতিবন্ধীদের কামড়ায় রয়েছেন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই সমস্ত বিষয়টি পরিষ্কার হয়। নাবালিকাকে উদ্ধার করে আরপিএফ এবং থানায় নিয়ে আসে। এরপর পরিবারের লোক জনের সাথে কথা বলিয়ে দেয়া হয় নাবালিকার সাথে। খবর পাওয়ার পর নাবালিকার পরিবার কিশান্গঞ্জ এর উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছে। কিশান্গঞ্জ আরপিএফ সূত্রে জানানো হয়েছে সোমবার তার পরিবারের লোকজন এলে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হবে নাবালিকাকে।
Powered by Blogger.