সোনারপুর বইমেলার উদ্বোধনে কবি সুবোধ সরকার




মৃন্ময় নস্কর, দক্ষিন ২৪ পরগণা: ইন্টারনেটের সঙ্গে পাল্লা দিচ্ছে একমাত্র বই। ৫ হাজার বছর ধরে বই রয়েছে। ইন্টারনেট আমাদের যেমন অনেক কিছু দিচ্ছে, তেমন অনেক কিছুই কেড়ে নিতে চলেছে। বই কিন্তু অনেক কিছু দিয়েই চলেছে। কিছু কেড়ে নেয়নি। তাই বই আজও আছে। আগামীতেও থাকবে। সোনারপুরে ২৯ তম সোনারপুর বইমেলার উদ্বোধনে এসে এই কথাই বললেন কবি সুবোধ সরকার। শুক্রবার বিকালে সোনারপুরের রেল কোয়াটার পার্কে এই বই মেলার উদ্বোধন হল। চলবে আগামী ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত। এবারে এই বইমেলার ভাবনা দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা।

সেখানকার শিল্প ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরা হবে এবারের বইমেলাতে। এই বইমেলার উদ্বোধনে সুবোধ সরকার ছাড়াও ছিলেন আনন্দ পুরষ্কার প্রাপ্ত লেখিকা তিলোত্তমা মজুমদার, প্রাবন্ধিক কুমার রানা, সোনারপুর দক্ষিনের বিধায়ক জীবন মুখোপাধ্যায়, উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন পর্ষদের সহ সভাপতি বিপ্লব মৈত্র, বইমেলার সম্পাদক সত্যব্রত পাল প্রমুখ। দক্ষিণ দিনাজপুরের নাচ দিয়ে বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু হয়। শতাধিক বইয়ের স্টল হয়েছে এবারের বইমেলায়। এছাড়া ফুড পার্ক, বিনোদন পার্ক, সায়েন্স পার্ক, শিশু ।পার্ক প্রভৃতি রয়েছে। প্রতিদিনই বইমেলা প্রাঙ্গনে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা সভারও আয়োজন করা হয়েছে। বইমেলার সম্পাদক সত্যব্রত পাল জানান, এই বইমেলা আস্তে আস্তে ৩০ বছরের দিকে এগোচ্ছে। সোনারপুরের বুকে সোনারপুর ক্লাব সমন্বয় সন্মিলনী অনেক কাজ করে চলেছে। রাজ্যে নৈশ গ্রন্থাগার এখানে রয়েছে। বইমেলার মূল ফটক তেভাগা আন্দোলনের শহীদদের স্মরণে করা হয়েছে। এই কয়েকদিন দুই জেলার গুনিজনকে সম্বর্ধনা ও তাদের নিয়ে নানা ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজনও করা হয়েছে। কলকাতার নামী দামী প্রকাশনার পাশাপাশি জেলার বেশ কিছু অনামী প্রকাশনা সংস্থাও তাঁদের স্টল দিয়েছে মেলায়। লিটিল ম্যাগাজিনের স্টলও রয়েছে।
Powered by Blogger.