তৃণমূল কংগ্রেস ভোটের রাজনীতি করে না: অভিষেক


ডায়মন্ডহারবার: শনিবার বিকালে দক্ষিণ ২৪ পরগনার ডায়মন্ডহারবার থানার ফকিরচাঁদ কলেজ মাঠে ডায়মন্ডহারবার এম কাপের শুভ উদ্বোধন করেন ডায়মন্ডহারবার কেন্দ্রের সাংসদ তথা রাজ্যের যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি অভিষেক ব্যান্নার্জী।এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ডায়মন্ডহারবার কেন্দ্রের বিধায়ক দীপক হালদার, সাতগেছিয়া কেন্দ্রের বিধায়ক সোনালী গুহ,ক্যানিং পূর্ব কেন্দ্রের বিধায়ক সওকাত মোল্লা, সাংসদ তথা ভারতের প্রাক্তন ফুটবলার প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়,বিশিষ্ট্য সংগীত শিল্পী শান প্রমূখ।এদিনের অনুষ্ঠানে ডায়মন্ডহারবার কেন্দ্রের সাংসদ তথা রাজ্য যুব তৃণমূলের সভাপতি অভিষেক ব্যান্নার্জী বলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই খেলা এবং বিভিন্ন ক্লাব গুলিকে যে ভাবে ৭ বছর ধরে অনুপ্রেরিত করছে,সাহায্য করেছে,আর্থিক সহযোগিতা করেছে ক্রীড়া জগৎতের সার্বিক উন্নয়নে।বাংলার এই কৃষ্টি-সংস্কৃতিক মরতে চলেছিল।৩৪ বছর ধরে কেউ কোনদিন করেনি।কিভাবে কাজ করতে হয় আমাদের নেত্রী আমাদের সেই পথ দেখিয়েছে।তৃনমূল কংগ্রেস কোনদিন ভোটে ভোট দাও ভোট চায় এই রাজনীতি করে না।ভোট পাখি ঠিক শ্যামা পুজোর সময় শ্যামা পোকা দেখা যায় পুজো চলে গেলে পোকা দেখা যায় না।ঠিক তেমনি বিরোধীরা ভোট হলে আসে।তৃনমূল কংগ্রেস সারা বছর ধরে ধারাবাহিক ভাবে মানুষের পাশে থাকে।


তিনি আরও বলেন তৃনমূল কংগ্রেস খেলায় আছে,তৃনমূল কংগ্রেস মেলায় আছে, তৃনমূল কংগ্রেস গুরুদয়,মন্দির,গির্জায়,মসজিদে সমস্ত ধর্মের সাথে আছে।তৃনমূল কংগ্রেস ভোটের রাজনীতি করে না।আমি মনে করি আমরা যারা রাজনীতির সঙ্গে অতপত ভাবে জড়িত, আমরা রাজনীতি করবো রাজনীতির জায়গায়।কিন্তু জন প্রতিনিধি হিসাবে আমাদের একটা দায় দায়িত্ব, আমাদের দায়বদ্ধতা মধ্যে পড়ে, দায়িত্বের মধ্যে পড়ে কর্ত্তব্যের মধ্যে পড়ে।মানুষকে সংগঠিত করে বাংলার যে কৃষ্টি-সংস্কৃতিক ঐতিহ্য এই ধারাবাহিক ভাবে কৃষ্টি-সংস্কৃতিক তরানিত না হয় এবং গ্রন্থের কথায় যদি বলতে হয় সব খেলার সেরা বাঙালীর সেরা ফুটবল।ডায়মন্ডহারবার এম পি কাপে ১২৮ টি দল অংশগ্রহন করেছে।ডায়মন্ডহারবার লোকসভা কেন্দ্রের ৭ টি বিধানসভা এবং ৭৩ টি অঞ্চল ও পৌরসভা থেকে ফুটবলাররা খেলছে এই এম পি কাপে।আগামী ২৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই খেলা চলবে।এদিনের অনুষ্ঠানে সাংসদ তথা রাজ্য যুব তৃণমূলের সভাপতি অভিষেক ব্যান্নার্জী বলেন আগামী ৭ ডিসেম্বর কেল্লা মাঠে শিলান্যাস হবে ২৫ কোটি টাকা ব্যায়ে ডায়মন্ডহারবার নদীর সৌন্দর্যে এবং পযটক শিল্পে।এদিনের অনুষ্ঠানে সাধারণ মানুষের ভীড় এবং উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মতন।
Powered by Blogger.