ব্যাংককে আকর্ষণ বাড়াতে স্কাইওয়াক


ব্যাংকক পর্যটকদের কাছে পৃথিবীর স্বর্গই বলা যায় ৷ যাঁরাই বেড়াতে পছন্দ করেন তালিকায় ব্যাংকককে অবশ্যই রাখেন কারণ কম খরচে বেড়িয়ে আসেন অনেকেই৷ সেই ব্যাংককেই আরও আকর্ষণীয় বানাতে এবার এলো স্কাইওয়াক৷ যেখানে চড়লে ভয়ে ঘামে ভিজবেই শরীর৷ এটি ব্যাংককের সর্ববৃহৎ উচ্চতার বিল্ডিং৷ ব্যাংককের বুকেই সম্প্রতি শেষ হয়েছে এই স্কাই ওয়াকের কাজ৷ খুলে দেওয়া হয়েছে জনসাধারণের জন্য৷ কিং পাওয়ার মহানাখোনের এই স্কাই ওয়াকের উচ্চতা ১ হাজার তিরিশ ফুট৷ সেই উচ্চতায় চড়েই পাখির চোখে দেখতে পাওয়া যাবে পুরো শহরকে৷

 তবে মন ও হৃদয় অবশ্যই শক্ত রাখতে হবে কারণ পাখির মত ডানা আপনার নেই৷ তাই আপনি উড়ছেন এমন অনুভূতি হয়ত আপনার হবে না৷ আর পায়ের তলায় মাটিও পাবেন না৷ কারণ এত উচ্চতায় উঠে আপনি দেখবেন পুরো মাটি পর্যন্ত ফাঁকা৷ শুধু পায়ের নীচে রয়েছে স্বচ্ছ কাঁচ৷ গা শিরশির করিয়ে দেওয়ার জন্য যেটা যথেষ্ট ভয়ের ব্যাপার ৷ সোজা পায়ে দাঁড়ানোর চেয়ে এসময় হাঁটু গেড়ে বসে পড়তে চান অনেকেই৷ মনের সে জোড় সকলের নাই বা থাকতে পারে৷ মনের জোড়ে পায়ের জোড় বাড়ে৷ তাই চড়ার আগে অবশ্যই মনের জোড়টা শানিয়ে নেওয়া প্রয়োজন৷
স্কাই ওয়াকের পুরোটাই প্রায় কাঁচ দিয়ে তৈরি৷ দেওয়াল কাঁচের৷ তাই শহরকে দেখা যায় ওপর থেকে৷ আবার পায়ের তলার স্বচ্ছ কাঁচ আপনাকে কতটা উচ্চতায় রয়েছেন তা হারে হারে নয় মজ্জায় মজ্জায় বুঝিয়ে দেবে৷

কিং পাওয়ার মহানাখোনের বাড়িগুলির ইনডোর পর্যবেক্ষণ ডেকটির উচ্চতা ৭৪ এবং ৭৫তলায়৷ আর ছাদ ৭৮ তলায়৷ তবে এই বারের সবচেয়ে আকর্ষণীয় জিনিসটি হল এর পায়ের তলার স্বচ্ছ কাঁচ৷ যা আপনার চোখে ব্যাংককের ৩৬০ ডিগ্রির ছবি তুলে ধরবে৷ তবে এই কাঁচের পৃষ্ঠতলে হাঁটার আগে আপনাকে অবশ্যই নিজের জুতোটি খুলে ফেলতে হবে এবং পরতে হবে তাদের দেওয়া প্রটেক্টিভ ফেব্রিক বুটি দেওয়া জুতো৷ যে পিছলোয়না৷ এটি পিছলে যাওয়া থেকে রক্ষা করবে৷
এটি জনসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয়েছে মাত্র তিন দিন আগেই৷ তাতেই উৎসাহে খামতি নেই৷ ভিড় বাড়ছে বেশ৷ সকলেই সেলফি কিমবা পোট্রেট তুলছেন৷ বন্ধুদের দিয়ে প্রোফাইল পিকচার তোলাচ্ছেন৷ কেউ ঠ্যাং ছড়িয়ে বসে তো কেউ কাঁচে হেলান দিয়ে৷ গড়াগড়ি খেয়ে ছবি তোলার কায়দাও দেখা যাচ্ছে অনেকের মধ্যে৷ আর সেই সব বিভিন্ন পোজের ছবি নাগাড়ে ইনস্টাগ্রাম ফেসবুকে পোস্ট করে চলেছেন তাঁরা৷ মিলছে দেদার লাইক ও কমেন্ট৷
তবে হ্যাঁ অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে৷ ব্যাংককের মাথার উপর গজিয়ে ওঠা এই সবচেয়ে উচ্চতার স্কাই ওয়াকটি কিন্তু মাথা ঘুরিয়ে দেয়৷ এমাথা ঘোরানো আশ্চর্য জিনিস দেখে চলতি কথায় যেভাবে মাথা ঘুরে গেল বলা হয় তেমন কিন্তু নয়৷ মানে, সত্যিই যাদের মাথা ঘোরার রোগ আছে৷ একটু উঁচুতেই ভয় লেগে যায়৷ অজ্ঞান হয়ে যাওয়ার প্রবণতা আছে, তাঁরা এই ঝুঁকিটা নেবেন না৷
আপনি কি তাও যেতে চান? আপনার কি সেই সাহস আছে? যদি থাকে তবে এমন জায়গা মিস করবেন না৷
Powered by Blogger.