বাস চালক,কন্ডাক্টরকে বেধড়ক মার উপপ্রধানের গাড়ির চালকের

[pullquote align="normal"] [/pullquote]

‌রাস্তায় পাশ না দেওয়ার অভিযোগে এক বাস চালক ও বাসের কন্ডাকটরকে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ উঠল চন্দনেশ্বর ২ পঞ্চায়েতের উপ প্রধানের গাড়ির চালক ও তার সঙ্গীদের বিরুদ্ধে। উপ প্রধানের সামনেই এই ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ। তিনি ঘটনার কোন প্রতিবাদ করেন নি বলেও অভিযোগ। গুরুতর আহত অবস্থায় ওই চালক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বাসের কন্ডাকটরকেও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে  খবর। ঘটনার জেরে ওই রুটের বাস পরিষেবা বন্ধ করে দেন বাস মালিকরা। শনিবার দুপুরে ভাঙড়ের সুন্দিয়া এলাকার ঘটনা।


এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। বন্ধ হয়ে যায় সোনারপুর থেকে ঘটকপুকুর এস ডি ৩ রুটের বাস চলাচল। আক্রান্ত বাস চালকের নাম রফিক আলি সর্দার ও কন্ডাকটরের নাম সাবির আলি সর্দার। ওই বাসের মালিক অমর আলি সর্দারে অভিযোগ, ডব্লিউ বি– ১৯ জি ০১৪৮ নম্বরের বাসটি ঘটকপুকুর থেকে সোনারপুরের দিকে আসছিল। চালক রফিক আলি ওই বাস চালিয়ে নিয়ে আসছিলেন। পিছন থেকে একটি ছোট ৪ চাকার গাড়িকে সাইডে দেওয়া নিয়ে গোলমাল বাঁধে। চালক ওই গাড়িকে পাশ দেয়নি বলে অভিযোগ। আর তার জেরেই বাসটি সুন্দিয়া মোড়ে এসে দাঁড়ালে ওই ছোট গাড়ি থেকে চালক এবং আরোহী কয়েকজন বেরিয়ে এসে চালককে বাস থেকে নামিয়ে  মারধর করতে শুরু করেন। তাকে বাঁচাতে কন্ডাকটর ছুটে যান। তখন তাকেও মারধর করা হয়। গোটা ঘটনাটাই ওই উপ প্রধানের সামনে ঘটে বলে তাঁর অভিযোগ। তিনি থামাতে এগিয়ে আসেন নি বলেও অভিযোগ। বাস চালক রফিক আলি ওই উপ প্রধানের কাছে ক্ষমা চাইলেও তার রেহাই মেলে নি বলেও অভিযোগ। তারপরেও তাকে বেধড়ক মারধর করা হয়েছে। যদিও চন্দনেশ্বর ২ পঞ্চায়েতের উপ প্রধান আলাউদ্দিন মোল্লা জানান ,  তাঁর গাড়িটি বাসের আগে আসছিল। আচমকাই বাসটি বিপদজনকভাবে তাঁর গাড়িটিকে ওভারটেক করে। তিনি দুর্ঘটনার হাত থেকে বাঁচেন। এলাকার মানুষ ক্ষিপ্ত হয়ে ওই বাস চালককে মারধর করতে পারেন।               
[pullquote align="normal"] [/pullquote]
Powered by Blogger.