ট্রাম্পকে ধুয়ে দিলেন ইমরান


যুক্তরাষ্ট্রের শত শত কোটি ডলার অর্থ সাহায্যের বিপরীতে পাকিস্তান কিছুই করেনি বলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে অভিযোগ করেছেন তার কড়া সমালোচনা করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি ধারাবাহিক টুইট বার্তায় ওয়াশিংটনের কথিত সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে পাকিস্তানের অবদান একে একে তুলে ধরেছেন।
একই সঙ্গে পাকিস্তান আর যুক্তরাষ্ট্র নয়, কেবল নিজে দেশের জনগণের স্বার্থ দেখবেন বলেও জানিয়েছেন এই নেতা। মার্কিন বিরোধী নেতা হিসেবে পরিচিত ইমরান খান বলেন, ট্রাম্পের সুদীর্ঘ আক্রমণাত্মক বক্তব্যের জবাব দিতে কিছু রেকর্ড তুলে ধরা প্রয়োজন।
ওয়াশিংটনের কথিত সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে পাকিস্তান জ্বলেপুড়ে ছারখার হয়ে গেছে বলেও দাবি করেন সাবেক এই ক্রিকেট তারকা।
পাক প্রধানমন্ত্রী সোমবার তার টুইটার বার্তায় বলেন, ‘৯/১১ হামলায় কোনো পাকিস্তানি জড়িত না থাকা সত্ত্বেও ইসলামাবাদ যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাস বিরোধী যুদ্ধে অংশগ্রহণ করে। এই যুদ্ধে ৭৫ হাজার পাকিস্তানি নিহত হয়েছে। আর দেশটির আর্থিক ক্ষতি হয় ১২৩ বিলিয়ন ডলারের। অথচ যুক্তরাষ্ট্র কথিত সাহায্য দিয়েছে মাত্র ২০ বিলিয়ন ডলার।’
ইমরান খান বলেন, আফগানিস্তানে মোতায়েন হাজার হাজার মার্কিন সেনার রসদ সরবরাহের জন্য এখনো পাকিস্তান তার স্থল ও আকাশসীমা খুলে রেখেছে। তিনি প্রশ্ন করেন, ‘ট্রাম্প কি যুক্তরাষ্ট্রের অন্য কোনো বন্ধু রাষ্ট্রের নাম বলতে পারবেন যেটি এতবড় আত্মত্যাগ করেছে?’
তিনি আরেক টুইটার বার্তায় আফগান যুদ্ধে ওয়াশিংটনের ব্যর্থতায় পাকিস্তানকে বলির পাঠা বানানোর জন্য ট্রাম্পকে অভিযুক্ত করেন।
ইমরান খান আরো বলেন, ‘তাদের ব্যর্থতার জন্য পাকিস্তানকে বলির পাঠা বানানোর আগে ট্রাম্পের উচিত আফগান যুদ্ধের পুনর্মূল্যায়ন করা। এই যুদ্ধে ন্যাটো জোটের এক লাখ ৪০ হাজার এবং আফগানিস্তানের আড়াই লাখ সৈন্য নিহত হওয়ার পাশপাশি কথিত এক ট্রিলিয়ন ডলার খরচ করার পরও বর্তমানে তালেবান অতীতের চেয়ে কেন বেশি শক্তিশালী, তা ভেবে দেখার সময় এসেছে।’
সবশেষে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাস বরোধী যুদ্ধের কারণে পাকিস্তান ভয়াবহ ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। এখন থেকে আমরা (পাকিস্তান) নিজেদের জনগণের জন্য যেটা ভালো এবং যেখানে আমাদের স্বার্থ রয়েছে, সেটাই করবো।’
Powered by Blogger.