"নোংরা লোকের পাল্লায় পড়ে নিজের ক্যারিয়ার শেষ করলেন শোভন"




নোংরা লোকের পাল্লায় পড়ে নিজের ক্যারিয়ার শেষ করলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। আকাশ থেকে মাটিতে পড়তে হল স্বামীকে৷ সদ্য মন্ত্রীত্ব ও মেয়র পদ হারানো শোভন চট্টোপাধ্যায়ের এমন করুণ পরিণতিকে এই ভাবেই ব্যাখ্যা করলেন তাঁর স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়৷ স্বামীর এই অবস্থার জন্য তিনি শোভন চট্টোপাধ্যায়কে যেমন দায়ী করেন তেমনই আঙ্গুল তোলেন বৈশাখীর দিকেও৷ নাম না করেও রত্নার খোঁচা, ‘‘কিছু নোংরা লোকের জন্য শোভন চট্টোপাধ্যায় শেষ হয়ে গেল৷ শোভন নিজেও তার জন্য দায়ী৷’’ নাম না নিলেও ইঙ্গিত তা যে বৈশাখীকে করেন তা বুঝতে বাকি ছিল না কারোর৷মঙ্গলবার দুপুরের দিকেও শোভন চট্টোপাধ্যায় ছিলেন কলকাতা পুরসভার মেয়র তথা রাজ্যের দমকল ও পরিবেশ মন্ত্রী৷ কিন্তু কয়েকঘণ্টার নাটকীয় পট পরিবর্তনের পর এক মুহূর্তের মধ্যে ক্ষমতাহারা হলেন দিদির প্রিয় কানন৷ রাজ্য সরকার তাঁর ইস্তফা গ্রহণ করে তা রাজভবন পাঠিয়ে দেয়৷ এমন বাজে সময়ে তাঁর পাশে এসে দাঁড়ালেন না তার স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়ও৷ সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সাক্ষাতকারে রত্না জানান মুখ্যমন্ত্রীর এই সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেন৷ মমতা দিদির আর তো কিছু করার ছিল না৷ তিল তিল করে দলটা তিনি গড়ে তুলেছেন৷ এই দল তাঁর কাছে সন্তানের মতো৷ একজনের জন্য নষ্ট করতে দিতে তিনি পারেন না৷


রত্না আরও জানান, শোভন মমতার আস্থাভাজন ছিলেন বলেই তাঁকে এত কাজের দায়িত্ব সঁপেছিলেন৷ কিন্তু শোভন দিদির আস্থা বিশ্বাস কিছুই ধরে রাখতে পারেননি৷ দিদি অনেক বুঝিয়েছিল৷ কিন্তু তাতেও কোনও কাজ হয়নি৷ সাক্ষাতকারে রত্না বলেন, ‘‘মমতা দিদি অনেক বুঝিয়েছিল ওঁকে একবার নয় বারবার শোভনকে মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনতে ৷ অনেক কাজের মানুষ ছিল৷ সেই মানুষ কোনও কাজ করতে পারছিল না৷ তাঁকে অনেক দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল৷ কিন্তু কোনও দায়িত্বই পালন করতে পারছিল না সে৷ তাই দিদিরও আর কিছু করার ছিল না৷’’মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একদা স্নেহের পাত্র ছিলেন শোভন। প্রিয় ভাইকে কানন বলে ডাকেন দিদি মমতা। কিন্তু সম্প্রতি সেই ভালোবাসায় ভাটা পড়ে। বিভিন্ন ঘটনায় তা প্রকাশ্যেও এসেছে বহুবার। একাধিকবার দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন করে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে সাবধান করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দিদির সেই সাবধানতা ভাই কানন অগ্রাহ্য করে যাচ্ছিলেন বলেও অভিযোগ উঠেছিল। তারপরেই মঙ্গলবার চরম সিদ্ধান্ত নেন মমতা৷ প্রিয় কাননের সব ক্ষমতা কেড়ে নেন তিনি৷
Powered by Blogger.