মেয়র ইস্তফা,নয়া সিলেকশন নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর যুক্তি



দল ঠিক করে দলের সবার অনুমতি নিয়ে কে মেয়র হবে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান,"আমার দলের ১২২ জনের মেয়র হওয়ার যোগ্যতা রয়েছে । তবে একটা সিস্টেম আছে"।দিলীপ বাবুর বিজেপি দলে নরেন্দ্র মোদী কেন প্রধানমন্ত্রী? সুষমা , জেটলি , রাজনাথ এর কি যোগ্যতা নেই ?বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এত লোক থাকতে কেন অমিত শাহ আপনার পার্টি বিজেপি সভাপতি ? অন্য অনেক তো যোগ্যতা আছে বলেন তিনি।

(আরও পড়ুনঃ মেয়র পদে ববি)

শোভন আজ মেয়র পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছে কিছুক্ষন আগেই জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।এক একটা জায়গার জন্য এক এক জন অভিজ্ঞ লোক দরকার। দল নিশ্চই তাঁকে দায়িত্ব দেবে যে কর্পোরেশন এর কাজ তা ভালো করে বোঝে , যে কর্পোরেশন চেনে ,জানে, বোঝে , যে দীর্ঘ দিন পুরসভার সঙ্গে যুক্ত। পঞ্চায়েতও সুব্রত দাকে বলেছি এরম আইন নিয়ে আসতে।যাকে আমরা করবো সে আগেও কাউন্সিলর ছিল , যে ইতিমধ্যেই জনপ্রতিনিধি , আমরা বাইরের কাউকে করবো নাকারো কারো ব্যাক্তিগত সমস্যা থাকতেই পারে, কোনো ভুল বোঝাবুঝি নেই , ও ভালো থাকুক , সবাই যে যার মতো ভালো থাকুক বললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিধানসভায় পাশ হয়ে গেল বিল।
কলকাতা মিউনিসিপাল কর্পোরেশন (দ্বিতীয় সংশোধনী বিল) , ২০১৮। মন্ত্রী, বিধায়ক, সাংসদরা মেয়র হতে পারেন। কিন্তু তাঁকে নির্বাচনে জিতে এসে তবেই মেয়র হতে হবে। যার ভোটিং পাওয়ার থাকবে না সে মেয়র হতে পারবে না। পুরসভার সংবিধানে এটা আছে। এভাবে আইন সংশোধন করাটা বেআইনি বলে অভিযোগ করলেন রাজ্যের প্রাক্তন পুর ও নগর উন্নয়ন মন্ত্রী অশোক ভট্টাচার্য। অশোকবাবুর দাবি, সংবিধান সংশোধন করতে হবে। তবেই ছয় মাসের জন্য কাউকে মেয়র পদে মনোনীত করা যাবে। মেয়র মনোনীত পদ নয়, নির্বাচিত পদ। এটা পাশ করতে হলে রাজ্যপাল নয়, রাষ্ট্রপতির সম্মতি দরকার। পুর সংবিধানে তাই বলছে। দাবি বামেদের। বিষয়টি নিয়ে কোর্টে যাওয়া হবে কি না তা নিয়ে ভাবনা চিন্তা হবে বলে জানান অশোক ভট্টাচার্য।
Powered by Blogger.