নিখোঁজ যুবকের দেহ পুকুরে

[pullquote align="normal"] [/pullquote]

এক দিন নিখোঁজ থাকার পর পুকুরে থেকে দেহ উদ্ধার যুবকের। পুকুরের পাড়ে মদ সহ তিনটি গ্লাস উদ্ধার  করলো বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ । ঘটনাটি ঘটেছে  দক্ষিণ 24 পরগণার বিষ্ণুপুর থানার  1 নম্বর ব্লকের আমগাছিয়া গ্রাম পঞ্চায়েত সামনে ফাল্গুনী 2 নম্বর প্রজেক্টের পরিত্যক্ত পানা পুকুর থেকে ।মৃত হলেন মহিউদ্দিন খাঁ ,বয়স ২৩  ।

জানা যায়, গত সোমবার বার সকালে বাড়ি থেকে বের হয় কাজে যাবে বলে কিন্তু সোমবার রাত হয়েগিয়েছে বাড়িতে ফেরেনি পরিবারের লোকজনদের বক্তব্য যে আত্মীয়দের বাড়ি খোঁজা খুঁজি করেছি কাজের জায়গাই খোঁজখবর করেছি কিন্তু যানা যাইনি,  প্রজেক্টের মাঠে গরু আনতে গিয়ে দেখে যে পুকুরে কার দেহ ভাসছে উপুর হয়ে  চিৎকার চেঁচামেচিতে ছুটে আসে সংশ্লিষ্ট মাঠে ফুটবল খেলা করছিল বেশ কিছু যুবক এসে দেখে যে বডি ভাসছে বিষ্ণুপুর থানাই খবর দিলে বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ গিয়ে দেহ উদ্ধার করে আমতলা গ্রামীন হসপিটালে নিয়ে আসে এবং দেহর কাছে থেকে নাকি 3 টি মদের গ্লাস  ও বোতল  উদ্ধার করে ও মৃত যুবকের সাইকেল উদ্ধার করে 40 ফুট দূরে থেকে।মঙ্গলবার বিকালে  সংশ্লিষ্ট থানার  ও গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার দক্ষিণ  আমগাছিয়ার বদ্দি পাড়াই বাসিন্দা মৃত যুবক । যুবকের পরিবারের লোকজন  ও পাড়া প্রতিবেশীদের বক্তব্য যে কেউ বা কারা ম্যাডার করে পুকুরের জলে ফেলে রেখে চলে গেছে কারণ  না হলে ওখান থেকে 3 টে মদের গ্লাস থাকলো কেন  । মৃত যুবকের স্ত্রীর দাবি যে তার স্বামী  আইসক্রিমেরব্যবসা করতো, কোম্পানির ঘরে থেকে হাজার পাঁচেক টাকা নেই  দিতে দেরি হওয়াই কোম্পানির লোকজন বাড়িতে এসে মেরে যাই , এবং পাশাপাশি শাসিয়ে যায় ।  তারাই হয়তো এক সঙ্গে মদ খেয়ে ম্যাডার করে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় । বিষ্ণুপুর থানাই খুনের  অভিযোগ দায়ের করেন পরিবারের লোকজন । তদন্তে বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ । পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখছে বিষ্ণুপুর থানার তদন্তকারী  অফিসার ।
 বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ দেহ উদ্ধার করে আমতলা গ্রামীন হসপিটালে নিয়ে গিয়েছে বুধবার ময়নাতদন্তের পর পরিবারের লোকজনের হাতে দেহ তুলে দেবে বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ ।
[pullquote align="normal"] [/pullquote]
Powered by Blogger.